দাম কমতে চলেছে রান্নার তেলের, করোনা পরিস্থিতিতে বড়ো পদক্ষেপ নিল কেন্দ্র সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনা পরিস্থিতির ফলে দেশের চতুর্দিকে অসহায় অবস্থার মধ্যে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।বিশেষত যেভাবে দিন প্রতিদিন আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে তা দেখে অনেকেই ভীত হয়ে পড়েছেন। এরই মধ্যে গোটা দেশজুড়ে দৈনন্দিন বিভিন্ন জিনিসের মূল্য বৃদ্ধি হয়ে চলেছে। যার মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন রান্নার খাদ্য সামগ্রী থেকে শুরু করে, নিত্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য বস্তু, রান্নার গ্যাস, পেট্রোল ডিজেল প্রভৃতি।প্রসঙ্গত কিছুদিন আগেই ছিল পশ্চিমবঙ্গ সহ দেশের অন্যান্য চার রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। সেই সময় কিছুটা নির্বাচনের তাগিদেই পেট্রোপণ্য সহ অন্যান্য জিনিসের দাম কমানো হয়েছিল।কিন্তু ভোটের ফলাফল প্রকাশ পাওয়ার পরেই আবার হঠাৎ করেই সেইসব জিনিসের দাম এক ধাক্কায় বাড়তে শুরু করে। এই ঘটনায় বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন দেশের সাধারণ জনগণ।যদিও এখনও পর্যন্ত এই প্রসঙ্গে কোনরকম কেন্দ্র বা রাজ্য সরকারের তরফে উত্তর দেওয়া হয়নি। তবে সম্প্রতি ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে বড়োসড়ো সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্র সরকার। কিছুদিন ধরেই রান্নার তেলের ক্রমশ দাম বাড়তে দেখা গিয়েছিল। যার ফলস্বরুপ সাধারণ মানুষের দুর্দশার অন্ত ছিল না।

গতকাল কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে এক আনুষ্ঠানিক বিবৃতি প্রকাশ করে বলা হয়েছে খুব শীঘ্রই ভোজ্যতেলের দাম কমার বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। জানিয়ে রাখি,এক সপ্তাহে ৫৫.৫৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে তেলের দাম।শুধুমাত্র ভোজ্যতেল নয় পাশাপাশি অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দামও একই ভাবে বেড়ে গিয়েছিল।কিন্তু দেশের বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে শেষ পর্যন্ত এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হল কেন্দ্র সরকার। যদিও কবে থেকে এই মূল্য কমে যাবে তার সম্বন্ধে কিছু বিশেষভাবে জানানো হয়নি। তবে আশা করা যাচ্ছে খুব শীঘ্রই এই প্রসঙ্গে ব্যবস্থা নেবে কেন্দ্রীয় সরকার। আনুষ্ঠানিকভাবে বিবৃতি প্রকাশ করার পর গতকাল কেন্দ্রীয় খাদ্য সচিব সুধাংশু পান্ডে দীর্ঘ বক্তব্য রাখেন সকলের উদ্দেশ্যে।

খাদ্য সচিবের কথা অনুযায়ী,’সীমা শুল্ক এবং এফসিআইয়ের সঙ্গে কথাবার্তা বলে এই জিনিসের যোগান বৃদ্ধির পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে’। এই বক্তব্য অনুযায়ী বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন খুব শীঘ্রই দাম কমবে। কিছুদিন আগে পর্যন্ত ভারতীয় বাজারে বনস্পতির দাম ছিল ১৪০ টাকা কিলো পর্যন্ত। এই আকাশছোয়া দামেও এবার আরো ৫০ টাকার মূল্য বৃদ্ধি ঘটতে দেখা যাচ্ছে। অর্থাৎ দাম বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ১৯০ টাকা। আর তাতেই চিন্তার ছাপ পড়েছে বিশেষজ্ঞদের কপালে।দিন প্রতিদিন এভাবে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা চলতে থাকলে খুব শীঘ্রই সঙ্কটের মুখোমুখি হবে ভারতবর্ষ। এমনিতেই গতবছরের লকডাউন এর রেশ এখনো পর্যন্ত সারাদেশে রয়ে গিয়েছে। অনেক জায়গাতেই রয়েছে উপযুক্ত কর্মসংস্থানের অভাব এবং বেকারত্বের তীব্র হাহাকার।কিন্তু এখনও পর্যন্ত সেই সব সমাধান না হওয়ার আগেই আবারো দৈনন্দিন জিনিসের দাম বাড়তে চলেছে তাতে মধ্যবিত্ত জনগণের পক্ষে বেঁচে থাকাই কঠিন হবে। তবে কেন্দ্র সরকারের এই পদক্ষেপ সাফল্যমন্ডিত হলে নতুনভাবে কিছু আশা করা যেতে পারে।

Back to top button