“ওম নমো শিবায়” মন্ত্র জপ করে ভারতের জন্য প্রার্থনা করল ইজরায়েল; ঝড়ের গতিতে ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন: বর্তমানে দেশজুড়ে করোনাভাইরাস এর দ্বিতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই পরিস্থিতি অত্যন্ত ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। বাচ্চা থেকে বয়স্ক সকলেরই এই পরিস্থিতিতে প্রাণহানি ঘটছে।বিশেষত করোনাভাইরাস এর এই দ্বিতীয় তরঙ্গ মানুষের ফুসফুসকে খুব সহজেই সম্পূর্ণরূপে আক্রান্ত করে ফেলছে। যে কারণে শ্বাসযন্ত্র নষ্ট হয়ে যাওয়ার দরুন চাহিদা বাড়ছে অক্সিজেনের।কিন্তু দেশের বেশিরভাগ রাজ্যেই উল্লেখযোগ্যভাবে অক্সিজেনের যোগান নেই।ফলস্বরূপ অনেক জায়গাতেই অক্সিজেনের অভাবে মানুষের মৃত্যু ঘটতে দেখা যাচ্ছে।ভারতের এই পরিস্থিতি দেখে ইতিমধ্যেই বিশ্বের অনেক দেশ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। বেশকিছু দেশের কাছে নিজে থেকেই সাহায্য চাইতে বাধ্য হয়েছে ভারত। এরমধ্যে এমন একটি দেশ হল ইজরায়েল। বর্তমানে ইজরায়েলের করোনা আক্রান্ত রোগী প্রায় নেই বললেই চলে।কিছুদিন আগেই এই দেশে ভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মে ছাড় দিয়ে মাস্ক ফ্রী নেশন বলে ঘোষণা করে হয়েছে।

সুষ্ঠুভাবে টিকাকরন এবং অন্যান্য নিয়মাবলী পালন করার ফলে এই দেশ ভাইরাস শূন্য হয়ে গিয়েছে। তাই সম্প্রতি ভারতের সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছে ইজরায়েল।এরমধ্যে ইজরায়েল থেকে একটি ভিডিও এই মুহূর্তে দুরন্ত গতিতে ভাইরাল হচ্ছে। ওই ভিডিওতে অজস্র মানুষকে একসঙ্গে বসে ‘ওম নমঃ শিবায়” মন্ত্রের জপ করতে দেখা যাচ্ছে। ইজরায়েলের মানুষ এই মন্ত্র জপ করে ভারত আর ভারতীয়দের জন্য প্রার্থনা করছেন বলে জানা গিয়েছে। এই ভিডিওটি নেট মাধ্যমে শেয়ার করেছেন ইজরায়েলে অবস্থানরত ভারতের কূটনীতিক পবন কে পাল নামের একজন ব্যক্তি। মুহূর্তের মধ্যেই নেট মাধ্যমে শোরগোল ফেলে দিয়েছে এই ভিডিওটি।

প্রথম থেকেই ভারত ঘনিষ্ঠ দেশ হিসেবে পরিচিত ইজরায়েল। ভারতের সাথে এই দেশের নানান ধরনের আধ্যাত্মিক যোগ লক্ষ্য করা গিয়েছে।প্রতিবছর এই দেশ থেকে বহু মানুষ ভারতের তীর্থ ক্ষেত্র গুলিতে এসে থাকেন। শুধুমাত্র তীর্থক্ষেত্রে আগমন নয়, সেখান থেকে আধ্যাত্মিক জ্ঞান অর্জন করেও থাকেন অনেকে। ফলস্বরূপ ভারতের এই সংকটজনক পরিস্থিতিতে পিছিয়ে থাকতে পারেননি তারা। পবন কে পাল নামে ওই ব্যক্তি এই অসাধারণ ভিডিওটি নিজের প্রোফাইল থেকে শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন,”যখন আপনাদের জন্য গোটা ইজরায়েল একত্রিত হয়ে আশার নতুন আলো হয়ে ওঠে”।অর্থাৎ বোঝাই যাচ্ছে ভিডিওটি শেয়ার করার মাধ্যমে শান্তি এবং সম্প্রীতির বার্তা দিয়েছেন তিনি। এবং যতই খারাপ অবস্থা আসুক না কেন ভারতের পাশে রয়েছে এই দেশ তাও বোঝা গিয়েছে। চাইলে আপনারাও এই অসাধারণ ভিডিওটি দেখে আসতে পারেন।

প্রসঙ্গত বর্তমানে গতকাল শুক্রবার এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লক্ষ্য ১ হাজার জন এবং মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৩৫০০ এর বেশি মানুষের। উল্লেখ্য গত জানুয়ারি মাসে দেশে টিকাকরণ চালু হয়েছিল।প্রথম দফায় চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের টিকা দেওয়ার পর মার্চ মাসের দ্বিতীয় দফায় ষাটোর্ধ্ব বয়স্ক ব্যক্তি এবং ৪৫ বছরের উপর যাদের শারীরিক সমস্যা রয়েছে তাদের নথিপত্র দেখার পর টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।এরপর সংক্রমনের বাড়বাড়ন্ত পরিস্থিতি দেখে নথিপত্র ছাড়াই টিকাকরণের কথা বলা হয়েছিল। সম্প্রতি মে মাসে ১৮ বছর বয়সের ঊর্ধ্বে সকল ভারতবাসীকে টিকাকরণের কথা ঘোষণা করে কেন্দ্র সরকার। কিন্তু টিকার ঘাটতির কারণে বেশিরভাগ রাজ্যতেই এই নির্দেশিকা মানা সম্ভব হচ্ছে না।ইতিমধ্যেই আবারো বিশেষজ্ঞরা ভারতে করোনাভাইরাস এর তৃতীয় তরঙ্গ আসার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। জানা গিয়েছে এই তৃতীয় তরঙ্গ অত্যধিক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে শিশুদের জন্য। এখনো পর্যন্ত শিশুদের কোন ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা হয়নি।তাই যতটা সম্ভব তাদের নিয়মাবলী পালন করার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।আমরা আশা করবো খুব দ্রুত যেন আমাদের দেশ এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি লাভ করতে পারে।

Back to top button