“বাচ্চার আসল বাবাকে খুঁজে দেবেন ব্যোমকেশবাবু?” নুসরত চর্চায় এবার জড়াল আবিরের নাম

নিজস্ব প্রতিবেদন: এবার আবির চট্টোপাধ্যায় অভিনীত ব্যোমকেশ চরিত্রটাকেও টেনে আনা হল নুসরতের এই ঘটনায়। বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি মিম খুব ভাইরাল হচ্ছে যাতে আবির ও নুসরতের ছবি ব্যবহার করে ট্রোল করা হয়েছে।

কয়েকদিন আগেই ব্রাত্য বসু পরিচালিত ‘ডিকশনারি’ সিনেমায় আবির ও নুসরতকে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছিল। দেখে মনে হচ্ছে, এটি সেই ছবিরই একটি সিন। সেখানে আবিরের ছবির পাশে লেখা হয়েছে, “বলুন কীভাবে আপনাকে সাহায্য করতে পারি?”। এবং নুসরতের ছবির পাশে লেখা হয়েছে, “আমার বাচ্চার আসল বাবাটা কে খুঁজে দেবেন ব্যোমকেশবাবু?”

গত বছর থেকেই নুসরত জাহান ও নিখিল জৈনের সম্পর্ক নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। নুসরত আগেই জানিয়েছিলেন, নিখিলের সঙ্গে থাকছেন না তিনি। এরপর থেকেই নুসরত ও অভিনেতা যশ দাশগুপ্তর ঘনিষ্ঠতার খবর পাওয়া যায়। ঠিক সেই সময় শোনা যায়, অন্তঃসত্ত্বা নুসরত জাহান, সেপ্টেম্বর মাসেই অভিনেত্রী কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে সন্তানের জন্ম দিতে চলেছেন।

এই ঘটনার কিছুদিন পরই নুসরত জাহানের বেবি-বাম্পের ছবি প্রকাশ্যে আসে। সে ছবিটির পোস্টের এ টলিউডের আরও দুই অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় এবং তনুশ্রী চক্রবর্তীর সঙ্গে হাসিমুখে পোজ দিয়েছিলেন নুসরত।এরই মধ্যে আবার নিখিল জৈন জানিয়ে দিয়েছিলেন, নুসরতের সন্তানের বাবা তিনি নন। বহুদিন ধরেই তিনি এবং নুসরত আলাদা থাকেন। তারপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোল, কটাক্ষ, ব্যঙ্গ, বিদ্রুপ যেন আরও বেড়ে যায়।

এতকিছুর মধ্যে আবার নুসরত জাহান বিবৃতি প্রকাশ করে জানিয়েছেন, “নিখিলের সঙ্গে তুরস্কের ডেস্টিনেশন ওয়েডিং এদেশে বৈধ নয়। নিখিলের সঙ্গে তাঁর বিয়ের কোনও রেজিস্ট্রেশন হয়নি। তাই লিভ-ইন সম্পর্কে ছিলেন দু’জনে।” পালটা অভিযোগ করে নিখিল জানিয়েছেন, বারবার বলা সত্ত্বেও ম্যারেজ রেজিস্ট্রেশন করতে রাজি হননি নুসরত। বিষয়টি তিনি আদালতে বুঝে নেবেন।

Back to top button