কী কারণে বিজেপিতে মোহভঙ্গ রাজীবের, উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

নিজস্ব প্রতিবেদন: একদা রাজ্যের প্রভাবশালী মন্ত্রী ছিলেন রাজীব ব্যানার্জী। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্য সরকারের তোলাবাজি, দুর্নীতি, স্বজনপোষণের বিরুদ্ধে সরব হয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। তিনি রাজ্য জুড়ে নির্বাচনী প্রচারে ঘুরে বেরিয়েছিলেন। এরপর তৃণমূলের ওপর তিনি একের পর এক আক্রমণ করেছেন। ৪২ হাজারেরও বেশী ভোটে পরাজিত হয়েছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জী।

ভোটে পরাজিত হওয়ার পর থেকে গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে তাঁর দিনদিন দুরত্ব বেড়েই চলেছিল। কোনও মিটিংয়ে তাঁকে আর দেখা যেত না। যখন তাকে নিয়ে চারিদিকে জল্পনা উঠেছিল, তখন তিনি বলেন, ‘বর্তমানে করোনায় আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে চাই। এখন রাজনীতি করার সময় নেই।” এরপর থেকে তাঁকে পার্টির কোনও বৈঠকেও দেখা যায় নি। আর গতকাল সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করে তিনি বুঝিয়ে দেন যে, বিজেপির সঙ্গে ওনার মোহভঙ্গ হয়েছে।

কেন মোহভঙ্গ হল রাজীবের? সুত্র অনুযায়ী,রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় মনে করছেন, এরাজ্যে বিজেপি যেভাবে উগ্র হিন্দুত্ববাদী মনোভাব নিয়ে চলছে, তা বাংলার মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে। তিনি এই দলের উগ্র হিন্দুত্ববাদ নিয়ে আপত্তি ভোটে হারার পর না তোলেননি, নির্বাচনের আগেও তুলেছিলেন। কিন্তু বিজেপি তখন বাংলার ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখছিল, তাই তাঁর কথায় পাত্তা দেয়নি।

এছাড়া একদা পুরোহিতদের কম ভাতা দেওয়া হচ্ছে বলেও সরব হয়েছিলেন তিনি। সেই সময় তিনি হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন কলকাতা অবরুদ্ধ করার। রাজীব ঘনিষ্ঠ মহলে এও জানিয়েছে যে, বিজেপি এখনও বারবার দিল্লী আর রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের ভয় দেখিয়ে চলেছে আর মমতা এবং অভিষেককে নিয়ে কুৎসা করে চলেছে। রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে, ভোটে হারের পর বিজেপির নীতি পরিবর্তনের দরকার ছিল, কিন্তু তাঁরা সেটা করেনি। আর এই কারণেই তিনি বিজেপির সঙ্গে আর সম্পর্ক রাখতে আগ্রহী নন।

Back to top button