দেশ বাঁচাতে হবে! 5G টেকনোলজির বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ জুহি চাওলা

নিজস্ব প্রতিবেদনএক কথায় বলতে গেলে এটা নেটের যুগ।আর আমরা এখন ইন্টারনেটের যুগে আরো উন্নত ও দ্রুত গতির সাথে কাজ করতে পারি।৪জি হাই স্পিড ইন্টারনেটের যুগ এখন।ধীরে ধীরে সেটাও পুরনো হতে চলেছে। যত বিজ্ঞান এগোচ্ছে ততই এগিয়ে যাচ্ছি আমরাও।আর হয়তো কিছুদিনের মধ্যেই মানুষের নাগালে এসে পৌঁছাবে আরো দ্রুততম ৫-জি টেকনোলজি। কিন্তু একদিকে যেমন দ্রুত আধুনিক থেকে অত্যাধুনিকের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা, তেমনি আমরা ক্ষতি করছি প্রকৃতিকে। এর আগেও প্রশ্ন উঠেছিল যে ৫-জি টাওয়ারগুলির রেডিয়েশনের ফলে মানুষ প্রকৃতি এবং অন্যান্য জীবজন্তুর জন্য আদৌ নিরাপদ তো? এই প্রশ্নে শামিল হয়েছেন অনেকেই। অভিনেত্রী জুহি চাওলা শুরু থেকেই বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কাজে যুক্ত কর্মীরা। মানুষকে সচেতন করার কাজও করেন তিনি।

আরও পড়ুন: লতা মঙ্গেশকরের কণ্ঠে দুর্দান্ত গান গেয়ে ফের তাক লাগল নদিয়ার গৃহবধূ, ভাইরাল ভিডিও

আরও পড়ুন: বাজারে ছেয়ে গিয়েছে ৫০০ টাকার জাল নোটে, সতর্কতা জারি করলো আরবিআই

তিনি বলেন, এই টাওয়ার থেকে যে হানিকারক রেডিয়েশন বার হয় সেটা যথেষ্ট ক্ষতি করতে পারে মানুষ এবং জীবজন্তুর। আর তাই ভারতে এই ৫-জি টেকনোলজি প্রবেশ করার আগে অবশ্যই আরো বেশি রিসার্চ দরকার আছে। এই বিষয়ে যথেষ্ট জ্ঞান না থাকলে এখনই এই টেকনোলজির প্রচলন করা উচিত নয়। এই বিষয়ে কোর্টে তিনি মামলাও করেছিলেন। আজ সেই মামলার প্রথম শুনানি থাকলেও মামলাটি অন্য বেঞ্চে ট্রান্সফার করা হয়। তার ফলে জানা যায় এর আগামী শুনানি শোনানো হবে দোসরা জুন। জুহির রিসার্চ সংগঠনের পক্ষ থেকে আগেই জানানো হয়েছে, ৫-জি টাওয়ার থেকে সাধারণত যে ধরনের আর এফ রেডিয়েশন বের হয় ত মানুষের স্বাস্থ্য, জীবজন্তু, প্রকৃতি সবকিছুর জন্যই ক্ষতিকর। আর তাই এটির বিরোধিতা করা একান্ত প্রয়োজন।

আরও পড়ুন: মোক্ষম চাল মমতার! ইস্তফা দিলেন আলাপন, এখন থেকে তিনি মুখ্যমন্ত্রীর উপদেষ্টা

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Juhi Chawla (@iamjuhichawla)

আরও পড়ুন: “আমার কোনো প্রাক্তন স্ত্রী নেই, প্রাক্তন বান্ধবী নেই।”- এসএসকেএম থেকে বেরিয়ে বললেন মদন মিত্র

নিজের এই পদক্ষেপের ব্যাপারে জুহি বলেন যে, “আমি আধুনিক টেকনোলজির বিরুদ্ধে নই। আমার নতুন ধরনের টেকনোলজি খুবই ভালো লাগে, যা আমাদের অনেক কাজকে আরো বেশি সহজ করে দেয়। এমনকি সেটা ওয়ারলেসের ক্ষেত্রেও। কিন্তু ওয়ার ফ্রি গ্যাজেট এবং নেটওয়ার্ক সেল টাওয়ার সংক্রান্ত আমাদের গবেষণা ও নিজস্ব পড়াশোনা থেকে স্পষ্ট ভাবে জানা যাচ্ছে যে এই বিকিরণ মানুষের স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক।”।।

Back to top button