“ভারত মমতাদি কে চায়”- স্লোগান দিলো তৃণমূলকর্মী সমর্থকরা

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে পশ্চিমবঙ্গে জয়জয়কার তৃণমূল কংগ্রেসের। এই নিয়ে তিনবার তৃণমূল কংগ্রেস ২১৩ টি আসন নিয়ে সরকার গঠন করেছে। নবান্নকে নিজেদের দখলে আনার চেষ্টা প্রথম থেকেই ছিল বিজেপির। বিজেপির স্টার প্রচারকরা তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা দিনের পর দিন বাংলার মাটিতে ভীষণভাবে প্রচার করেছেন, রোড শো করেছেন, কিন্তু তা সত্ত্বেও বাংলার মানুষের বিশ্বাস অর্জন করতে পারেনি বিজেপির শীর্ষ নেতারা।

ভরাডুবি ঘটেছে বিজেপির। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ” মুখ্যমন্ত্রীর বাংলার মানুষের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন প্রচার সভা থেকে দেওয়া জনমোহিনী প্রতিশ্রুতি গুলি এবারে তৃণমূলকে জয়ের মুখ দেখতে অনেকটাই অনুকূল পরিস্থিতি এনে দিয়েছে। একুশের নির্বাচনে তৃণমূলের অন্যতম স্লোগান ছিলো, ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়।’ এবার তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের মুখে চালু হয়েছে আরেকটি স্লোগান- ‘ভারত মমতা দিদিকে চায়।”

টুইটারে এই স্লোগান ক্রমশ ট্রেন্ডিং হয়ে উঠেছে‌। অনেকেই মনে করছেন যে, চব্বিশের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং নরেন্দ্র মোদীকে হারানোর মত মাত্র একজনই আছেন, আর তিনি হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একুশের নির্বাচনে অনেকেই ভেবেছিলেন যে এবারে বিজেপির পাল্লা ভারী আছে। এই বিষয়ে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী দেখা গিয়েছিলো বিজেপিকেও। বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা প্রচারের জন্য বারবার বাংলার মাটিতে ছুটে আসছিলেন।

কিন্তু এত চেষ্টার পরেও শেষ রক্ষা হলো না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিপুল ভোটে জয়ী হলে বিজেপি কে একেবারে ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছে। একুশের ভোটে মুখ্যমন্ত্রী কে সমর্থন জুগিয়েছে সমাজবাদী পার্টি, শিবসেনা, আরজেডি প্রভৃতি রাজনৈতিক দলগুলি। তাই চব্বিশের লোকসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই ব্যক্তিত্ব যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহদের ধরাশায়ী করতে সক্ষম হবে সেই ব্যাপারে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী দেখা যাচ্ছে তৃণমূল নেতা কর্মীদের।

Back to top button