টুইটারে ট্রেন্ড করছে “ভারত মমতাদিকে চায়”, চব্বিশের নির্বাচনের আগে নতুন সমীকরণের ইঙ্গিত নয়তো

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে শাসকদলের স্লোগান ছিল বাংলা নিজের মেয়েকে চায় । এবার সেই স্লোগান কে ও ছাপিয়ে গেল তৃণমূল কংগ্রেস তাদের নতুন স্লোগান ” ভারত মমতা দিদিকে চায় “ । হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন এবার ভারত মমতা দিদিকে চায় বলে স্লোগান চালাচ্ছে এবং যা রীতিমতো ট্রেন্ডিং । নরেন্দ্র মোদিকে যদি কেউ হারাতে পারেন তিনি আর কেউ নন আমাদের বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । 24 এর লোকসভা নির্বাচন নিয়ে মুখ খুললেন তিনি ।

34 বছর ধরে সিপিএম শাসন করেছে পশ্চিমবঙ্গে আর ঠিক তার পরেই 2011 সালে প্রথমবারের জন্য ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূল সরকার আর সেই থেকেই চলছে তৃণমূলের আধিপত্য দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লড়াকু মনোভাব ভারতের অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিদের পছন্দের। বাংলা দখলের পর কি এবার ভারত দখল তা নিয়ে প্রচুর বিচার-বিশ্লেষণ চলছে আদৌ কি সম্ভব তবে এ বিষয়ে অনেক মতানৈক্য আছে

প্রসঙ্গত একুশের নির্বাচনে যে লড়াই চলছিল তার আভাস পাওয়া গিয়েছিল অনেকদিন আগে থেকে তবে লড়াইটি ছিল দ্বিমুখী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বনাম মমতা ব্যানার্জির লড়াই । বিজেপি প্রধানমন্ত্রী ভোট চেয়ে এসেছে তবে নরেন্দ্র মোদির মুখ ছাপিয়ে যেতে পারেনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি কে তবে এটা চিন্তার বিষয় যে জিততে না পারলেও বিজেপি গতবারের বিধানসভার তুলনায় 74 টি আসন বেশি পেয়েছে ।।তবে গেরুয়া শিবির তৃণমূলের খুব বেশি ক্ষতি করতে পারেনি।
নির্বাচন চলাকালীন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশে অপশাসন এবং অগণতান্ত্রিক পরিস্থিতিতে করার অভিযোগ তুলেছিলেন আর তার পক্ষে এসে দাঁড়িয়েছিলেন কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী সহ আরো অনেক নেতারা । বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য আহ্বান জানিয়েছিলেন ।

শিবসেনা, আরজেডি, এনসিপি, সমাজবাদী পার্টি সহ অনেকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি আস্থা দেখিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের পাশে দাঁড়াতে আহ্বান জানিয়েছিল রাজ্যবাসীকে। তবে 24 এ নির্বাচনে কি আমরা আমাদের মুখ্যমন্ত্রী কে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে পাবো সেটাই সবথেকে বড় প্রশ্ন যদিও এখন টুইটারের ট্রেন্ডিং ভারত মমতাকে চায় তবে দেখা যাক ভারত আদেও চায় কিনা ।

Back to top button