গায়ে ব্যাঙ দেখিয়ে আকুল আর্তি করা সাংবাদিকের ভাইরাল ভিডিওর রহস্য ভেদ, প্রকাশ্যে আরও একটি ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদনবুধবার শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ইয়াস দাপট দেখালো পূর্ব মেদিনীপুর সহ পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী অঞ্চলে গুলিতে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এতই প্রবল, যা আন্দাজ করা সম্ভব নয়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন ৭২ ঘন্টা না গেলে কিছুই বলা যাচ্ছে না, কিন্তু আন্দাজ করা যাচ্ছে প্রায় এক কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়ে। শুধু দুই মেদিনীপুর নয়, ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে সঙ্গেই পূর্ণিমার ভরা কোটালে নদীর বাঁধ ভেঙেছে দুই ২৪ পরগনা তেও, জল ঢুকে গেছে বহু গ্রামে। যার ফলে, রিপোর্ট করতে বিভিন্ন চ্যানেলের রিপোর্টার বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এই দুর্যোগের মধ্যে জি ২৪ ঘণ্টার একটি রিপোর্টারের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে, যেখানে রিপোর্টার কে বুক সমান জলে রিপোর্ট করতে দেখা গিয়েছে।

গোসাবায় রিপোর্টটি করার সময়, এই রিপোর্টার দেখান একটি ব্যাংক বাঁচার তাগিদে তার গায়ে উঠে পড়ছে। এই রিপোর্টারটির পাশে কয়েকজনকে মাছ হাতেও দেখা গিয়েছে। এমনকি তিনি বলেন ব্যাঙ,মাছ সবাই দুর্যোগে বাঁচার চেষ্টা করছে। সোশ্যাল মিডিয়াতে রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায় ভিডিওটি।এই ভিডিওটি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে অনেক মিম দেখা যায়, কারণ নেটবাসী মনে করে তিনি কার্যত অভিনয় করছেন চ্যানেলের TRP বাড়ানোর জন্য। তার আর এক প্রধান কারণ হলো, এই ভয়াবহ দুর্যোগে তার পাশে দাড়িয়ে থাকা মানুষজন দেরকে হাসতে দেখা গিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়াতে এই ভিডিওটি নিয়ে জলঘোলা হতে না হতেই সামনে আসলো আসল ঘটনা।

স্থানীয় এক ব্যক্তির করা ভিডিও ফাঁস হয়ে যায়, সমস্ত নেটবাসী দেখে পর্দার পিছনের দৃশ্য। ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে, তিনি নিজেকে জলমগ্ন মাঠে নেমেছিলেন, তার আশেপাশের রাস্তায় কোন জল নেই। উনি যেখানে নেমেছিলেন তার পাশেই ছিল রাস্তা। সাংবাদিক যেখানে নেমেছিলেন, সেটি রাস্তার তুলনায় নিচু জমি, যেখানে জল জমা অস্বাভাবিক কিছু নয়।

এই রিপোর্টিং সম্পর্কিত দ্বিতীয় ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর সকলে ওই মেডিয়া হাউসের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। নেটবাসীদের মতে,“এই দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে এমন নিম্নমানের রিপোর্টিংয়ের কি খুব দরকার ছিল?”

Back to top button