মুসলিম জনসংখ্যা ২৯ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, বন্ধ করার ব্যবস্থা নেওয়া হবেঃ হিমন্ত বিশ্ব শর্মা

নিজস্ব প্রতিবেদন: অসমের নির্বাচনে জয়লাভ করেন মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। তিনি সংখ্যালঘুদের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করতে একটি বড়ো পদক্ষেপ নিতে চলেছেন। তিনি ঠিক করেছেন তাদের মধ্যে শিক্ষার আলো দিয়ে এই কাজ সম্ভব অন্যথায় এই নিয়ে আরও রাজনীতি হতে পারে। তাদের মধ্যে দারিদ্রতা ও নিরক্ষরতাকে তিনি দূর করে মুসলিম জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের কথা বলেছেন।

হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বলেন, “এটা কোনও রাজনৈতিক ইস্যু নয়। এটা আমাদের মা আর বোনেদের ভালোর জন্য, আর সর্বপরি এটা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কল্যাণের জন্য। অসম নিজের বার্ষিক জনসংখ্যা বৃদ্ধি ১.৬ শতাংশ করতে সক্ষম হয়েছে, কিন্তু মুসলিম জনসংখ্যা ২৯ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে আর হিন্দু জনসংখ্যা ১০ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।”

তিনি জানান,”আমি মুসলিম সম্প্রদায়ের নেতাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলছি আর নেতৃত্ব করার জন্য আগামী মাসেই কয়েকটি মুসলিম সংগঠনের সঙ্গে পরামর্শ করব।” তিনি আরও বলেন, “আমাদের নীতিমালার প্যারামিটারে বিশ্ববিদ্যালয় স্তর পর্যন্ত মেয়েদের জন্য নিখরচায় শিক্ষা, সংখ্যালঘু মহিলাদের আর্থিক অন্তর্ভুক্তি, পঞ্চায়েতগুলিতে সংরক্ষণ এবং সরকারী চাকরিতে সংরক্ষণ এবং সংখ্যালঘু অঞ্চলে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় খোলার মতো প্রণোদনা অন্তর্ভুক্ত থাকবে।”

তিনি আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন, রাজ্যে তিনি ‘দুই সন্তান নীতি’ প্রকল্প চালু করতে চলেছেন। এই নিয়মে ২ য়ের বেশি সন্তান হলে তাকে সমস্ত সরকারি সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হবে। এমনকি সে পঞ্চায়েত নির্বাচনে লড়তে পারবে না। রাজ্যে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য তিনি এই সিদ্ধান্ত নেন।

দ্বিতীয়বার বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর হিমন্ত বিশ্ব শর্মা অসমের মুখ্যমন্ত্রী নিযুক্ত হন। তিনি ক্ষমতায় এসে বেশ কিছু নির্দেশ জারি করেন, সংখ্যালঘুদের দ্বারা সরকারি এবং বনভূমি দখল করে বসবাস করার বিরুদ্ধে কড়া নির্দেশিকা জারি করেন এছাড়াও আছে ‘দুই সন্তান নীতি’

Back to top button