‘ইয়াশ’ ঝড়ের এর পর এবার আসছে ‘গুলাব’ কবে কোথায় আছড়ে পড়বে জানালো আবহাওয়া দপ্তর

নিজস্ব প্রতিবেদন: কয়েকদিনের তীব্র দাবদাহের অবসান ঘটিয়ে বর্ষা প্রবেশ করল বাংলায়। আগের বছর হওয়া ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের রেশ কাটতে না কাটতেই এই বছর দেখা দিয়েছে ঘূর্ণিঝড় যশ। আম্ফান এর তুলনায় অনেক গুন বেশী ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এই যশের কারনে। ঘূর্ণিঝড় যশ এই বছর উপকূল অঞ্চলে তীব্র প্রভাব ফেলল যার ফলে সেখানকার মানুষের জীবনযাত্রা ব্যাহত।

যশ এবং আমফানের প্রভাব কেটে যাওয়ার পর আবার একটি ঘূর্ণিঝড়ের আভাস দিল আবহাওয়া দপ্তর। এই নতুন ঘূর্ণিঝড়ের নাম গুলবো। উপকূলবর্তী মানুষজন কিভাবে আবার স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাবে তাই নিয়েই তারা চিন্তিত। তারা সাথে মারণ ভাইরাস করোনা তো আছেই। সব মিলিয়ে তাদের বেচে থাকাটা কঠিন হয়ে পড়েছে। এই ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ কবে কোথা থেকে তৈরি হবে এখনও সঠিক জানা যায়নি। তবে থাইল্যান্ড, মালদ্বীপ, পাকিস্থান বাংলাদেশ এবং ভারতের যে কোনো একটি জায়গায় ভয়ংকর পরিস্থিতি নিতে পারে এই ঘূর্ণিঝড়। এমনটাই খবর। এই গুলাবো নামটি পাকিস্তানের দেওয়া।

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, বঙ্গোপসাগরের উপর অবস্থান করা নিম্নচাপের মধ্যে দিয়ে প্রবেশ করেছে বর্ষা। তবে কয়েক দিনের মধ্যেই প্রবল ঝড় বৃষ্টির সম্ভাবনা। আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, দুই মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া ও হাওড়ায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে গোটা দেশ ইতিমধ্যেই ২ টি পর পর সাইক্লোন দেখতে চলেছে। চলতি বছরে দেশের দুই প্রান্তে ১০ দিনের মাথায় দুটি সাইক্লোন সংগঠিত হয়। এছাড়া পর পর কয়েকটি টর্নেডাের তন্ডবও দেখা গেছে। এবার শােনা যাচ্ছে নতুন এই সাইক্লোন ওড়িশার বুকে আছড়ে পড়তে পারে। এই নতুন সাইক্লোন কতটা ভয়াবহ হতে পারে,তার সম্পর্কে কিছু এখনও জানা যায়নি।

Back to top button