ঘূর্ণিঝড়ে জলোচ্ছ্বাসের জেরে বাড়বে গঙ্গার উচ্চতা, জলে ডুবতে পারে কলকাতা

নিজস্ব প্রতিবেদনইয়াশের কারণে ও ভরা কটাল ও চন্দ্রগ্রহণ এই তিন জিনিসের কারণে কলকাতার বেশ কিছু অঞ্চলে জলমগ্ন হবার আশংকা আছে। নবান্নে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) আশ্বাস দিয়ে জানিয়েছেন, “গোদের উপর বিষফোঁড়া। একে দুর্যোগ, তাতে ভরা কটাল, সঙ্গে চন্দ্রগ্রহণ। ভরা পূর্ণিমায় গঙ্গায় জলস্তর বাড়বে। কলকাতার বিভিন্ন এলাকায় গঙ্গা থেকে জল ঢুকে পড়বে। তার জন্য অবশ্য আলাদা ব্যবস্থা করা আছে।”

মঙ্গলবার মৌসম ভবন তরফ থেকে জানানো হয়েছে , পূর্ব মেদিনীপুর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার সমুদ্র উপকুলে যেমন ৭৫-৮০ কিমি বেগে ঝড়ের সঙ্গে প্রবল জলোচ্ছ্বাস দেখা যাবে, তেমনই ভারী বৃষ্টি হবে। একইভাবে কলকাতা মহানগরের উপর দিয়েও মুষলধারে প্রবল বৃষ্টির পাশাপাশি ৬০-৭০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা। অন্যদিকে ঠিক ওই সময়েই কলকাতার গঙ্গায় ভরাকোটাল আসছে। সকাল সওয়া ন’টায় নদীতে শুরু হবে জোয়ার। বেলা পৌনে এগারোটা নাগাদ সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছে যাবে জোয়ারের জলের উচ্চতা।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, চন্দ্রগ্রহণ ও ভরাকোটালের যৌথপ্রভাবে গঙ্গায় জল বৃদ্ধি পাচ্ছে, সঙ্গে যশ বা ইয়াস (Cyclone Yaas)। কলকাতা পুরসভার নিকাশিবিভাগের ভারপ্রাপ্ত প্রশাসকমণ্ডলীর সদস্য তারক সিং, গঙ্গায় জলের উচ্চতা বৃদ্ধি পেলে যাতে শহরে প্রবেশ না করতে পারে সেই জন্য লকগেটগুলি পরিদর্শন করেন। জানিয়ে দেন, জলোচ্ছ্বাস ও জোয়ারের জল বৃদ্ধি পাওয়ায় বুধবার গঙ্গায় সকাল সাড়ে দশটার পর থেকে বিকেল চারটে পর্যন্ত লকগেট বন্ধ থাকবে। পরে তারক সিং জানান, “ভরাকোটালের প্রভাবে গতকাল গঙ্গায় স্বাভাবিকের চেয়ে ১৬.৭৫ ফুট বেশি উচ্চতায় পৌঁছেছিল জলের উচ্চতা। বুধবার সেটি আরও বৃদ্ধি পেয়ে ১৭.২৫ ফুটের বেশি উচ্চতায় পৌঁছে যাবে বলে পূর্বাভাস। লকগেট বন্ধ থাকায় ওই সময় যদি প্রবল বৃষ্টি হয় তা হলে সমস্ত জল শহরেই জমে থাকবে, শহর জলমগ্ন হবেই।”

Back to top button