ট্রেন চালু নিয়ে এবার বড় সুখবর, সোমবার থেকে ১৫০ টি ট্রেন দিয়ে শুরু!

নিজস্ব প্রতিবেদন: গতবছর করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সরকার বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছিল লোকাল ট্রেন। বড়োসড়ো জমায়েত এড়িয়ে চলার জন্য পূর্ব রেলের তরফ থেকে পূর্বেই বিভিন্ন রাজ্যে লোকাল ট্রেন পরিষেবা বন্ধ করা হয়েছিল। যার ফলে কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়ে ছিল লোকাল ট্রেনের সঙ্গে যাদের জীবন নির্বাহ যুক্ত তাদের। লকডাউন চলল প্রায় এক বছর। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ফের বন্ধ হলো লোকাল ট্রেন পরিষেবা। লোকাল ট্রেনের মাধ্যমে যারা জীবিকা নির্বাহ করে তারা দুবেলা দুমুঠো ভাত কিভাবে জোগাড় করবে এই প্রশ্ন তাদের সহ্যের সীমানা ভেঙে দিল।

রাজ্য সরকার সরকারি স্টাফদের অফিসে যাওয়ার জন্য কিছু স্টাফ স্পেশাল ট্রেনের ব্যবস্থা করেছিল। কিন্তু বেসরকারি সংস্থায় কাজ করা কর্মীদের জন্য কেন কোনো পদক্ষেপ নিল না সরকার। শিয়ালদা এবং হাওড়া স্টেশনে সম্প্রতি ভাঙচুর এবং পুলিশের সঙ্গে ধ্বস্তাধ্বস্তির খবর জানা গিয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতি দেখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পূর্ব রেলওয়ের কর্মকর্তারা অতিরিক্ত ট্রেন চালানোর অনুমতি চাইলেও, কোনো উত্তর আসেনি নবান্নের তরফ থেকে।

যার ফলে ভারতীয় পূর্ব রেলওয়ের প্রতিনিয়ত বিক্ষোভের মুখে পড়ছে। তবে এবার ভারতীয় পূর্ব রেলওয়ের বিকল্প রাস্তা বার করলো। যেহেতু এই মুহূর্তে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করা সম্ভব নয়, সেহেতু হাওড়া এবং শিয়ালদা ডিভিশনে স্টাফ স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে সোমবার থেকে। যাত্রীর চাপ নেওয়া অসম্ভব হয়ে যাচ্ছে বলে পূর্ব রেলওয়ে শিয়ালদা এবং হাওড়া শাখার স্পেশাল ট্রেন বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পূর্ব রেলের তরফ থেকে জানানো হয়েছে শিয়ালদা এবং হাওড়া দুই ডিভিশনেই স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে। সূত্রের খবর হাওড়াতে ৫০ টি এবং শিয়ালদাতে ১০০ টি স্পেশাল ট্রেন বৃদ্ধি করা হবে অর্থাৎ শিয়ালদা এবং হাওড়া ২ শাখা মিলিয়ে মোট ১৫০ টি স্টাফ স্পেশাল ট্রেন বৃদ্ধি করা হচ্ছে। শিয়ালদা শাখায় স্টাফ স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধি হয়ে দাঁড়ালো ৩৫৯ এবং হাওড়াতে হলো ২০৪। ভারতীয় রেলের দাবি এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর চাপ রীতিমতো অনেকখানি কমেছে।

Back to top button