ভুবন বাদ্যকরের দিন শেষ, ধীরে ধীরে জায়গা করে নিচ্ছেন মিলন কুমার

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক: রানু মন্ডল, ভুবন বাদ্যকর এদের নাম তো আমরা বহুবার শুনেছি, গানও শুনেছি। যদিও বর্তমানে রানু মন্ডল নিজের অহংকারের কারণে মুম্বাই থেকে আবার রানাঘাটে নিজের বাড়িতে এসে থাকতে বাধ্য হয়েছেন। কিন্তু ভুবন বাদ্যকর অহংকার দেখাননি। তিনি সবসময় ভগবান ও তার দর্শকদের প্রতি কৃতজ্ঞ থেকেছেন। ভুবন বাদ্যকরের মতে আজ তিনি যা পেয়েছেন সবই ভগবান ও তাকে যারা ভালোবাসে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছেন তাদের দৌলতে।

তিনি বর্তমানে সেলিব্রিটি হলেও তার মধ্যে সেলিব্রিটিচিত কোন অহংকার বা দেখনদারির বালাই নেই। যদিও নতুন বাড়ি ও নতুন আইফোন কিনেছেন তিনি। এই নিয়ে তাঁর আনন্দের শেষ নেই। কিন্তু অহংকার এর লেশ বিন্দুমাত্র দেখা যায়নি তার মধ্যে। কথায় আছে “অহংকার পতনের মূল”।

তাই রানু মন্ডল এর আজ এই অবস্থা এবং ভুবন বাদ্যকর আজ বহু মানুষের মনে বিরাজ করছেন। তবে আজ আমরা রানু মন্ডল বা ভুবন বাদ্যকর কে নিয়ে কথা বলতে আসিনি। আমরা কথা বলতে এসেছি এক নতুন সোশ্যাল মিডিয়া সেন্সেশন কে নিয়ে।

তিনি হলেন পূর্ব বর্ধমানের বর্ধমান 1 নম্বর ব্লকের নিত্যানন্দপুর এর বাসিন্দা মিলন কুমার। জ্ঞান হওয়ার পর থেকেই তিনি শুধু দারিদ্র দেখেছেন। এই দারিদ্রতার মধ্যে তিন বেলা খেতে পাওয়াই অনেক বড় ব্যাপার তাঁদের কাছে। সেখানে গান শেখা নিতান্তই বিলাসিতা ছাড়া কিছুই না। তাই তারও গান শেখা হয়নি কোনোদিন।

কিন্তু বহু ক্ষেত্রে দেখা যায় নাচ, গান, আঁকা ইত্যাদি না শিখেও সহজাত প্রতিভার দৌলতে এইসব কাজ বেশ নিপুণতার সাথে অনেককে করতে। তেমনি একজন হলেন মিলন কুমার। তাঁর ভাষ্যমতে ছোটবেলা থেকে কখনই গান শেখার হয়নি। কিন্তু আজ এই গানই তার পেশা। যদিও তিনি স্টেজ শো বা এই ধরনের কিছু করেন না। তিনি ট্রেনে গান করেন।

এই আর্থিক অনটনের জন্য তিনি প্রতিদিন বর্ধমান কাটোয়া লোকালের যাত্রীদের গান শুনিয়ে টাকা রোজগার করেন। এটি তাঁর নিত্যদিনের কাজ। কিন্তু একদিন ভগবান সদয় হন এবং তার এই গান গাওয়ার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেন একজন যাত্রী। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় সেই ভিডিও।

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া সেন্সেশন হয়ে উঠেছেন তিনি। অনেকেই তাঁর গানের প্রশংসা করছেন। মিলন কুমারের পাকা বাড়ি নেই। বরং ত্রিপল টানিয়ে থাকতে হয় তাঁদের। গান গেয়ে যেটুকু রোজকার হয় তা দিয়েই তাদের সংসার চালাতে হয়। এবার দেখার পালা মিলন কুমার ভাগ্যের জোরে সাফল্য পেতে পারেন কিনা। আমরা তাঁর সাফল্যের কামনা করি।

Back to top button