অমিত শাহের নির্দেশে হেরে যাওয়া প্রার্থীদের নিরাপত্তা তুলে নিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার‌

নিজস্ব প্রতিবেদনএকুশের বটে বাংলা দখলের জন্য বিজেপি সর্বশক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বাংলায়। ভোটের আগে দেখা গিয়েছিল অনেক তৃণমূল নেতা বিজেপিতে যোগদানও করছেন। কিন্তু বিজেপির তাবড় তাবড় নেতার সামনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাই যে যথেষ্ট। ২১৩ টি আসন পেয়ে নবান্নে তৃতীয়বারের জন্য ফের হাওয়াই চটি। ৭৭ টি আসন পেয়ে বিজেপি গন্য হয়েছিল প্রধান বিরোধী দল হিসেবে। যদিও বর্তমানে তাদের আসন সংখ্যা ৭৫, কারণ দুজন বিধায়ক ইতিমধ্যে ইস্তফা দিয়েছেন।

তৃণমূল রাজ্য দখল করার পর বাংলাতে দেখা গিয়েছে হানাহানি, অশান্তির ছবি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিজেপি কর্মীদের মার খেতে হয়েছে তৃণমূল কর্মীদের হাতে। সেই অশান্তির জল সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্তও গড়িয়েছিল। জানা গিয়েছে, পরাজিত প্রার্থী এবং যেসব প্রার্থী দের উপর হামলার আশঙ্কা কম তাদের কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা প্রত্যাহার করা হচ্ছে। নেতা-মন্ত্রীদের কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়দিন ধরে জলঘোলা হচ্ছে।

অনেকেরই দাবি, যেকোনো নেতা-মন্ত্রীদের কেই ইচ্ছামত কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে। বর্তমান বেশিরভাগ বিজেপি নেতা মন্ত্রী কেন্দ্রীয় এক্স ক্যাটেগরির নিরাপত্তা পান। শুধুমাত্র জেড ক্যাটেগরির নিরাপত্তা পান শুভেন্দু অধিকারী এবং মুকুল রায়। কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত, পরাজিত বিজেপি প্রার্থী, পাড়া স্তরের নেতাদের কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা প্রত্যাহার করা হচ্ছে। সূত্রের খবর, এই বিষয়ে মতদান করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

Back to top button