পুরুষের বয়স, ধর্মকে এক ফুৎকারে উড়িয়ে শ্রীলেখা বললেন, ‘সে’ক্স বারবার’!

নিজস্ব প্রতিবেদন: ‘দুপুর ঠাকুরপো’– দের ঠেকাতে নাজেহাল শ্রীলেখা মিত্র।আর তার জন্যই রোজ ১টি করে আপেল খাচ্ছেন তিনি। অভিনেত্রী নিজেই তা এক সংবাদ মাধ্যমে সে কথা জানিয়েছেন।তিনি সোশ্যাল মিডিয়া তেও সেই ছবি পোস্ট করেছেন। সেই ছবিতে তিনি লিখেছেন যে, ‘রোজ একটি করে ইভের আপেল, অ্যাডামদের দূরে রাখে’! অভিনেত্রীর আপেলে কামড় দেওয়ার ভঙ্গি চোখে পড়ার মতো। এক টুকরো আপেল মুখে নিয়েই লাল ঠোঁট ফুলিয়ে এক অমোঘ ইশারা।

অ্যাডামদের থামাতে? না ডাকতে? এই ছবি তিনি পোস্ট করলেন সে নিয়ে নেটমাধ্যমে হইচই পড়েছে। এক সংবাদ মাধ্যমে তিনি বলেন, ‘‘সারা ক্ষণ পুরুষদের ঘ্যানঘ্যানানি আর ভাল লাগছে না। কেউ কফি ডেটে যেতে চান। কেউ মুখোমুখি গল্প করার অনুরোধ জানান।’’ তিনি আবার পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘‘এ সব আর কত দিন ভাল লাগে?’’ অভিনেত্রীর ফেনরা জানেন যে, শ্রীলেখা অতি রোম্যান্টিক। জীবন কে তিনি সবরকম ভাবে উপভোগ ভালো আসেন। শ্রীলেখা নিজেও একথা স্বীকার করেছিলেন যে, ভিজে দিন এলেই তিনিও মনে মনে রোম্যান্টিসিজমে ভিজিয়ে নেন নিজেকে। তা হলে তাঁর মুখে প্রেম থেকে দূরে থাকার কথা! কেন?

শ্রীলেখা দেবীর দাবি, ৪০ পেরিয়ে গিয়েও তিনি আগের মতোই রোম্যান্টিক আছেন এখনো। কিন্তু তিনি হতাশ হচ্ছেন, একটা পুরুষের মধ্যে তিনি ভালবাসার সব গুণ আর খুঁজে পাচ্ছেন না! অভিনেত্রীর কথায়, ‘‘কারওর চুমু খাওয়ার ভঙ্গি ভাল লাগে। কারওর রোম্যান্টিক হাসি। কেউ হয়তো খুবই বুদ্ধিদীপ্ত। ফলে, এক এক করে ভালবাসার পুরুষের সংখ্যা বাড়ছেই। এটা ভাল লাগছে না।’’ এক মাত্র সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মধ্যে তিনি পুরুষের যাবতীয় ভালোবাসার গুণ খুঁজে পেয়েছিলেন তিনি। ‘‘সৌমিত্র কাকুর পর এমন এক জনকেও দেখলাম না যাঁর সঙ্গে উদ্দাম প্রেম সম্ভব’’, শ্রীলেখার বক্তব্য। তার পরেই অভিনেত্রী বিস্ফোরক হয়ে ওঠেন বলেন, ‘‘আমার কাছে পুরুষের বয়স, ধর্ম কোনও বিষয় নয়। এজ নো বার, কাস্ট নো বার… সেক্স বারবার!’’ তাঁর দাবি, এই প্রজন্মে তেমন জোরালো প্রেমিক কই? যিনি এক দেখাতেই ভাসিয়ে নিয়ে যাবেন শ্রীলেখাকে? অভিনেত্রী তাই এখন আপেল দিয়েই ‘অ্যাডাম’দের দূরে ঠেলতে চাইছেন!

Back to top button