বাচ্চাদের বাড়িতেই কোরআন পড়ান, শেষ হোক ‘মাদ্রাসা” শব্দের অস্তিত্ব! বললেন হিমন্ত বিশ্বশর্মা

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক: ‘মাদ্রাসা’ শব্দটির বিলুপ্তি করণকে নিয়ে এর আগেও সরব হতে দেখা গেছিল বহু ব্যক্তিত্বকে। বহু ব্যক্তিত্ব একাধিকবার ‘মাদ্রাসা’ শব্দটির বিলুপ্ত করার ব্যাপারে মতামত দিয়েছিলেন। এবারে ‘মাদ্রাসা’ শব্দটির বিলুপ্ত করার ব্যাপারে প্রকাশ্যে মতামত দিলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী। অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বলেন যে শিক্ষার সঙ্গে ‘মাদ্রাসা’ শব্দটি যুক্ত করা উচিত নয়। তাঁর মতে, শিক্ষার সাথে ‘মাদ্রাসা’ শব্দটি থাকলে শিক্ষার্থীরা ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার কথা ভাববে না।

একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে অসমের মুখ্যমন্ত্রী এই প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখেন। তিনি সর্বসমক্ষে বলেন যে, “শিশুদের কোরান শেখান, তবে সেটা বাড়িতে। এই ‘মাদ্রাসা’ শব্দটি যতদিন প্রাসঙ্গিক থাকবে, ততদিন আপনাদের বাচ্চারা ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার পথে অগ্রসর হতে পারবে না। আপনারা যদি তাদেরকে এই ব্যাপারটি বোঝাতে সক্ষম হন, তাহলে তারা নিজেরাই মাদ্রাসায় যেতে চাইবে না।”

এছাড়াও তাঁর সংযোজন ছিল, রাজ্যে যেসকল স্কুল কিংবা কলেজ রয়েছে, সেখানে সাধারণ শিক্ষার ওপর জোর দেওয়া উচিত। এই কারণে গণিত, বিজ্ঞান, প্রাণী এবং উদ্ভিদ বিদ্যার উপর পড়ুয়াদের জ্ঞান বৃদ্ধি করা উচিত। ধর্মীয় গ্রন্থকে বাড়িতে পড়াতে বলেছেন। স্কুলগুলিতে কেবলমাত্র তাদের ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার কিংবা বিজ্ঞানী হওয়ার জন্য যে শিক্ষা দেওয়ার প্রয়োজন, সেটাই করা দরকার বলেই তাঁর মতামত।

শেষে এসে তিনি বক্তব্য রাখেন, “আমাদের দেশে কেউ মুসলিম হয়ে জন্মায় নি। সবাই হিন্দু ছিল। তাই কোনও মুসলিম পড়ুয়ার কৃতিত্বের পেছনে হিন্দুদের অর্ধেক কৃতিত্ব প্রাপ্য।” এই মন্তব্য ভালো চোখে দেখা হচ্ছে না। বিভিন্ন গুঞ্জন শুরু হয়ে গিয়েছে এই মন্তব্যকে ঘিরে।

Back to top button