রত্নাকে যেন হাসপাতালে ঢুকতে না দেওয়া হয়! সুপারকে কড়া চিঠি শোভনের

নিজস্ব প্রতিবেদনগত সোমবার নারদ কান্ডে সিবিআই গ্রেফতার করেছে ফিরহাদ হাকিম, মদন মিত্র, সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং প্রাক্তন তৃণমূল নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। হাইকোর্ট তাদের জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছে। প্রেসিডেন্সি জেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে চার নেতাকে। প্রেসিডেন্সি জেল থেকে মঙ্গলবার ভোর রাতে এসএসকেএম-এর উডবার্ন ওয়ার্ডে স্থানান্তরিত হয়েছেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র তথা নারদা মামলায় অভিযুক্ত শোভন চট্টোপাধ্যায়। তাকে যখন নিজাম প্লেসে নিয়ে যাওয়া হয় তখন সেই খবর শুনে সেখানে পৌঁছে যান তার স্ত্রী রত্না । রাতে যখন তাকে প্রেসিডেন্সিতে নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে পৌঁছে যান তার বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

বৈশাখী প্রেসিডেন্সি জেলে ঢোকার জন্য অনেক চেষ্টা করে কিন্তু কোনো মতেই ঢুকতে পারে না জেলে । ওনাকে জেলের গেটে ধাক্কা দিয়ে কাঁদতেও দেখা গিয়েছিল। কিন্তু তাতেও লাভ হয় নি। শারীরিক অসুস্থতার জন্য শোভন বাবু কে নিয়ে যাওয়া হয় এসএসকেএম-এ । তিনি এখন চিকিৎসাধীন ।  আর সেখান থেকেই তিনি হাসপাতালের সুপারকে চিঠি লিখে জানিয়েছেন যে, ওনার স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কে যেন হাসপাতালে ঢুকতে না দেওয়া হয়। শোভনবাবু আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে, রত্না নিজের সঙ্গীদের নিয়ে হাসপাতালে ঢুকে অশান্তি পাকাতে পারে। এই কারণেই তিনি এই মুহূর্তে ওনাকে হাসপাতালে ঢুকতে দিতে চান না। এছাড়াও ওনার মেয়ে সুহানি এবং ছেলে ঋষিকেও হাসপাতালে ঢুকতে দিতে বারণ করে দেওয়া হয়েছে।

Back to top button