বাংলায় ধেয়ে আসছে বড়সড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ, সর্তকতা জারি করল আবহাওয়া দপ্তর

নিজস্ব প্রতিবেদনউত্তর বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া নিম্নচাপের কারণে পশ্চিমবঙ্গ তথা আরও কয়েকটি এলাকায় ইতিমধ্যেই ভারী বৃষ্টিপাত হয়ে চলেছে। আবহাওয়া দপ্তরের অনুমান অনুযায়ী, ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে বাংলা, ওড়িশা এবং ছত্রিশগড় প্রভৃতি রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। সোমবার এবং মঙ্গলবার বজ্রপাতের কারণে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২৯ জনের।

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, আরও একবার বজ্রবিদ্যুৎ সহ ভারী বৃষ্টি হতে পারে, সতর্ক করা হয়েছে মৎস্যজীবীদের, কলকাতাসহ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন এলাকাতেই আজ আকাশ থাকবে মেঘলা, দুপুরের দিকে বৃষ্টি হতে পারে, তবে আগামীকাল থেকে তাপমাত্রা একটু কমতে পারে। নদীবাঁধগুলি আবার নতুভাবে গড়ে তোলার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে আর্জি জানিয়েছে নবান্ন।

আবহাওয়াবিদ জানিয়েছেন, আগামীকাল দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা হতে চলেছে ৩৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা হতে পারে ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে।আগামীকাল অমাবস্যার ভরা কোটাল ও পশ্চিমবঙ্গে অধিক পরিমাণে মৌসুমী বায়ু প্রবেশ করার কারণে কয়েকদিন ধরেই ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে রাজ্যজুড়ে। সাথে সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাসও বাড়তে পারে বলে জানানো হয়েছে।

জানানো হয়েছে প্রায় ৭ থেকে ১১ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত হতে পারে এবং ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে হিমালয় নিকটবর্তী মালদা, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার এবং জলপাইগুড়ি প্রভৃতি রাজ্যে। সাথে বজ্রবিদ্যুৎ সহ ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে , আজ আকাশ মেঘলা থাকবে, মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে বারণ করা হয়েছে। অনুমান করা হয়েছে ১১ থেকে ১৪ জুন রীতিমতো বৃষ্টি হতে পারে বাংলায়।

Back to top button