এক মাসে ২০% পর্যন্ত কমল দাম, দেখে নিন সরষের তেল-সহ বিভিন্ন ভোজ্য তেলের দর

নিজস্ব প্রতিবেদন: এক নিয়মে লাগাতার বেড়ে যাচ্ছিল ভোজ্য তেলের দাম। তবে কেন্দ্রীয় খাদ্য মন্ত্রক জানালেও গত একমাসে অনেক ক্ষেত্রে প্রায় ২০ শতাংশ কমেছে তেলের দাম। সঙ্গে কেন্দ্রীয় খাদ্য মন্ত্রক তেলের দাম বৃদ্ধির কারণ হিসেবে দায়ী করেছে আন্তর্জাতিক বাজারের দর, দেশীয় বাজারে চাহিদা ও ঘরোয়া উৎপাদনের মধ্যে ফারাকের মতো বিষয়গুলিকে।

মন্ত্রকের তরফ থেকে বুধবার জানানো হয়েছে,” কয়েকটি ক্ষেত্রে গত একমাসে ভোজ্য তেলের দাম প্রায় ২০ শতাংশ কমেছে। ভোজ্যতেলের দাম নির্ভর করে কিছু জটিল বিষয়ের উপর। যার মধ্যে বিশেষ বিষয় গুলি হল আন্তর্জাতিক বাজারের দর এবং ঘরোয়া উৎপাদন, দেশে বড়োসড়ো ফারাক আছে উৎপাদন এবং চাহিদার মধ্যে। ফলে বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয় ভোজ্যতেলের এক বিশাল অংশ।”

ক্রেতা-বিক্রেতাদের মাথায় হাত পড়েছিল যেভাবে করোনার সংকটকালীন সময়ে তেলের দাম হু হু করে বেড়ে যাচ্ছিল। ব্যবসায়ীরা জানিয়েছিল, দেশীয় বাজারে তেলের দামের হেরফের হয় আন্তর্জাতিক বাজারের উত্থান-পতনের উপর নির্ভর করে, কারণ ভারতে ভোজ্য তেলের উৎপাদন অনেক কম। ভবিষ্যতে যাতে এই সমস্যা মেটানো যায় তার দিকে নজর রাখছে কেন্দ্র।

মুম্বাইয়ের ভিত্তিতে ভোজ্যতেলের নতুন দাম-

১) গত ৭ মে এক কিলোগ্রাম পাম তেলের দাম ছিল ১৪২ টাকা, যে দাম ১৯ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ১১৫ টাকায়।

২) ৫ মে এক কিলোগ্রাম সাদা তেল বা সূর্যমুখী তেলের দাম ছিল ১৮৮ টাকা, জা ১৬ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ১৫৭ টাকায়।

৩) ২০ মে এক কিলোগ্রাম সোয়া তেলের দাম ছিল ১৬২ টাকা, যে দাম ১৫ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ১৩৮ টাকায়।

৪) ১৬ মে এক কিলোগ্রাম সরষের তেলের দাম ছিল ১৭৫ টাকা, যা ১০ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ১৫৭ টাকায়।

৫) গত ২ মে এক কিলোগ্রাম বনস্পতি দাম ছিল ১৫৪ টাকা, যে দাম প্রায় ৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ১৪১ টাকা।

৬) ১৪ মে এক কিলোগ্রাম বাদাম তেলের দাম ছিল ১৯০ টাকা, যা প্রায় ৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ১৭৪ টাকা।

Back to top button