অবিশ্বাস্য ঘটনা! মাটির নিচে সন্ধান মিলল মাঠ,ঘাট,খাল,বিল,আকাশ নিয়ে আরেক পৃথিবীর! ঘুম উড়েছে বিজ্ঞানীদের!

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক: সত্যিই অবাস্তব তাই না! যদি আপনাদেরকে বলা হয় পৃথিবীর মধ্যে রয়েছে এমন একটি গুহা যার মধ্যে আছে আরেকটি আলাদা পৃথিবী। হ্যাঁ সত্যিই তাই। নদী-নালা খাল-বিল পুকুর এমনকি আকাশ মেঘ ও আছে। এমনই অবাক করা এক গুহা আছে।

সম্প্রতি চীনের এক প্রদেশ সে মিলেছে এমন একটি গুহার সন্ধান। যেখানে স্থানীয় বাসিন্দারা যাতায়াত করতে পারে। কিন্তু বাইরের কোন পর্যটক তার ভেতর যাতায়াত করতে পারে না। তাই এতদিন প্রকাশ্যে আসেনি সেই গুহার কথা। কিন্তু এবার সবার সামনে উঠে এলো। আর চাপা রাখা গেল না।

আমাদের মধ্যে গুহার গল্প শুনতে গিয়ে যে বিষয়টি ধারণা হয়েছে সেটি হল অন্ধকার একটি পরিবেশ যার ফাঁকফোকর দিয়ে ঢুকবে অল্পমাত্রায় সূর্যের কিরণ। এবং সেখানে থাকে বিশেষ কিছু বিষাক্ত জন্তু জানোয়ার এবং বিষাক্ত গ্যাস যেখানে মানুষ একবার প্রবেশ করলে আর ফিরে আসতে পারে না। গুহার গল্প বলতে গেলে এমনই চিত্র সবার সামনে ভেসে ওঠা টাই স্বাভাবিক।

কিন্তু এ এক আলাদা গুহাচিত্র ভেসে উঠল সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায়। যেটা দেখে এবং শুনে অবাক হবেন আপনিও। কিন্তু সম্প্রতি চীনের চঙকিং প্রদেশের আবিষ্কার হয়েছে এমন এক গুহা। যে গুহার এক নিজস্ব আলাদা আবহাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

পৃথিবীতে যেমন আকাশ রয়েছে আকাশে মেঘ এবং কুয়াশা আছে এই গুহার ভিতরে আছে আলাদা একটা আকাশ যেখানে মেঘ এবং কুয়াশাও বিরাজমান। শুধু তাই নয় ওয়াটের মধ্যে খাল বিল নদী পুকুর এবং পাহাড় সহ রয়েছে আরও অনেক কিছু। চীনের এই গুহাটির নাম ইয়ার ওয়াং ডং।

গুহা বিশেষজ্ঞ এবং ফটোগ্রাফারদের সমন্বয়ে গঠিত একটি দল ওই গুহাটির গোপনীয়তা আবিষ্কার করেন এবং কিছু দুর্লভ ছবি প্রকাশ্যে তুলে আনেন। অভিযাত্রীদের মতে গুহা টির ভেতরে মেঘ জলীয়বাষ্প বালুকণা সহ রয়েছে একটা আলাদা আবহাওয়া। যা অনেকটা শীতল। ফলে সেখানে সাধারণ মানুষের বেশীদিন বেঁচে থাকা সম্ভব নয়। যেটা সামনে আসার পর নেট নাগরিকগণ অস্থির হয়ে পড়েছে।

Back to top button