রেশন কার্ডে এই তথ্য ভুল থাকলে ৫ বছর জেল ও জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদন: দেশের সাধারণ মানুষের খাদ্যের অভাব পূরণের জন্য কেন্দ্র ও রাজ্যের থেকে চালু করা হয় রেশন কার্ড।এই কার্ডের মাধ্যমে নূন্যতম টাকার বিনিময়ে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হয় সাধারণ মানুষের হাতে।যদিও এই অতিমারির সময় তা বিনামূল্যে সরবরাহ করা হচ্ছে। কিন্তু যদি এই রেশন কার্ডে কেও ইচ্ছা করে ভুল তথ্যে দিয়ে রাখে তাহলে তার পাঁচ বছরের জেল অথবা জরিমানা এর যেকোনো একটা শাস্তি হতে পারে।

ভারতে মোটামুটি ভাবে তিন রকমের রেশন কার্ড প্রচলিত আছে। যথাক্রমে এপিএল, বিপিএল এবং অন্ত্যোদয়। দারিদ্র্যসীমার উপরে যারা আছেন তারা পান এপিএল কার্ড। দারিদ্র সীমার নিচে যারা থাকেন তারা পান বিপিএল কার্ড এবং একেবারে দরিদ্র পরিবারগুলি জন্য সরকারের তরফ অনুমোদিত অন্ত্যোদয়ের রেশন কার্ড চালু আছে।

প্রত্যেকটি কার্ডের ক্ষেত্রে খাদ্য সামগ্রীর পরিমান আলাদা আলাদা হয়ে থাকে। অন্ত্যোদয়ের রেশন কার্ডের আওতায় যারা আছেন তারা এপিএল দের তুলনায় বেশি রেশন পান।কিন্তু সে ক্ষেত্রে নানা ধরণের জালিয়াতি দেখতে পাওয়া যায়। আর সেই সকল জালিয়াতি বন্ধ করতে কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে রেশন কার্ডের সাথে আধারের লিংক বাধ্যতামূলক।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, কোনো পরিবারের সদস্যের মৃত্যুর পরও তার নামের কার্ডে পরিবারের সদস্যরা রেশন নিচ্ছে।এ ছাড়াও অনেকে ভুল তথ্য দিয়ে বিপিএল কার্ড বা অন্তর্দয় কার্ড করিয়ে থাকে।এই সকল কাজে যদি কেউ জড়িত থাকে তাহলে ভারতে খদ্দসুরক্ষা আইন অনুযায়ী অভিযুক্তের পাঁচ বছরের জন্য জেল বা জরিমানা হতে পারে।

Back to top button