‘কলকাতার মানুষকে আমি বাঁচাতে পারলাম না’- কান্নাভেজা গলায় বললেন ফিরহাদ হাকিম

নিজস্ব প্রতিবেদন: সন্ধ্যেবেলা ব্যাঙ্কশাল আদালত থেকে অন্তর্বর্তী জামিন পেয়েছিলেন ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু সেই স্বস্তি বেশিক্ষণ স্থায়ী হলো না। এই জামিনে স্থগিতাদেশ জারি করল কলকাতা হাইকোর্ট। যার জেরে আগামী বুধবার পর্যন্ত প্রেসিডেন্সি জেলে থাকতে হবে এই চার হেভিওয়েটকে।

আসলে কলকাতা হাইকোর্ট নিন্ম আদালতের জমিন নির্দেশের উপর স্থগিতাদেশ জারি করে। সেই জন্য রাতেই প্রেসিডেন্সি জেলে রাখা হয় ওই তৃণমূলের চার নেতাকে।চার নেতাকে বুধবার অবধি জেল হেফাজতে থাকতে হবে এইরকম খবরই পাওয়া যাচ্ছে। এই খবর রীতিমতো চাপে ফেলে দিলো তৃণমূল কংগ্রেসকে। ফিরহাদ হাকিম তখন কান্নায় ভেঙে পড়েন। হাকিম বলেন যে ,তাঁকে কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের প্রধান হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল৷ এই কঠিন করোনা পরিস্থিতিতে দাহকার্য, টিকাকরণ, পরীক্ষা সহ স্যানিটাইজেশনের মত কাজ ঠিক যাতে হয় সে দায়িত্বেই তিনি ছিলেন। তারপরই আবেগঘন হয়ে তিনি বলেন, কলকাতার মানুষকে তিনি বাঁচাতে পারলেন না।

কেন জামিন থেকে আমরা বঞ্চিত হলাম, প্ৰশ্ন তোলেন তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম। অন্যদিকে মদন মিত্র বলেন যে, আমরা খারাপ কিন্তু শুভেন্দু মুকুলরা ভালো।প্রেসিডেন্সি জেলে নিয়ে যাওয়ার সময় ফিরহাদ হাকিম বলেছিলেন যে তার আইনি ব্যবস্থার উপর পূর্ণ আস্থা রয়েছে। প্রসঙ্গত, সোমবার সকাল থেকে নারদ কান্ডের অভিযুক্তদের গ্রেফতারিকে কেন্দ্র করে রাজ্য রাজনীতি তোলপাড় ছিল। চার অভিযুক্তকে CBI হেফাজতে নেওয়ার পর নিজাম প্যালেসে গিয়ে ঝামেলা শুরু করে তৃণমূল কর্মীরা।।

Back to top button