কীভাবে করা হবে মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিকের মূল্যায়ন, ঘোষণা সংসদ ও পর্ষদের

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজ্যে করোনা পরিস্থিতিতে এবছরে বাতিল করা হয়েছিল মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক। তবে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ জানালেন জুলাই মাসেই প্রকাশিত হবে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের ফল এবং ২৩ শে জুনের মধ্যে নম্বর জমা দিতে হবে স্কুলকে।

জানা গিয়েছে, নবম শ্রেণির ফলাফলের ৫০ শতাংশ এবং দশম শ্রেণির অ্যাসেসমেন্ট টেস্টের নম্বরের ৫০ শতাংশ যোগ করে মাধ্যমিকের মার্কশিট তৈরি করা হবে। পর্ষদ জানালেন, কেউ যদি মনে করে এর থেকে বেশি নম্বর সে পেতে পারে তাদের জন্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরীক্ষা নেওয়া হবে। তবে সেই সব পড়ুয়াদের পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরই চূড়ান্ত বলে মান্য করা হবে।

সংসদ সভাপতি মহুয়া দাস জানিয়েছেন, ২০১৯ সালের মাধ্যমিকের সর্বাধিক প্রাপ্ত নম্বরের নিরিখে চারটি বিষয় থেকে ৪০ শতাংশ, ২০২০ সালের একাদশ শ্রেণির লিখিত পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের ৬০ শতাংশ ও দ্বাদশের প্রজেক্ট (২০ নম্বর) ও প্র্যাক্টিকাল (৩০ নম্বর)-এর গড় হিসাব করে দ্বাদশ শ্রেণির রেজাল্ট তৈরি হবে। তবে এতে যদি পড়ুয়ারা সন্তুষ্ট না হয় তাদের জন্য পরে পরীক্ষার আয়োজন করা হবে।

তাদের জন্য পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরই চূড়ান্ত বলে ধার্য করা হবে। ২০১৯ সালের মাধ্যমিকে পড়ুয়া যে চার বিষয়ে সবচেয়ে বেশি নম্বর পেয়েছিল সেই প্রাপ্ত নম্বরের ৪০ শতাংশ। বিজ্ঞান বিষয়ের ৭০ নম্বরের মধ্যে ২৮ নম্বর নেওয়া হবে এই ক্ষেত্র থেকে অর্থাৎ পাটিগণিতের হিসেবে ৪০০-এর মধ্যে যে ২০০ পেলে ২৮ নম্বরে কত পাবেন ওই পড়ুয়া, এই ভিত্তিতে হবে মূল্যায়ন।

জনগণের মতামতে এই রাজ্যেও কমিটির সুপারিশ এবং সুপ্রিম কোর্ট মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল করেছে। তবে পর্ষদ ও সংসদ বাতিলহয়ে যাওয়া ২১ লক্ষ পড়ুয়াদের পরীক্ষা কি ভাবে হবে তা নিয়ে চিন্তায় আছেন।

Back to top button