বাবাকে সবাই ভুল বুঝেছে, কিশোর কুমারের চারটে বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন ছেলে অমিত কুমার

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক: কিশোর কুমার, আলাদা করে তাঁর পরিচয় দেওয়ার প্রয়োজন। তাঁর নামটাই যথেষ্ট। বাঙালির আবেগ জুড়ে থেকে যাবে তাঁর নাম। বাংলা হোক বা হিন্দি তাঁর গাওয়া গানগুলো সঙ্গীত প্রেমীদের কাছে কোনও দিন পুরনো হবে না। আর তাঁর অভিনয় তো কালজয়ী।এই বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী মানুষটি ভারতবাসী নস্টালজিয়া। কিশোর কুমারের সুযোগ্য পুত্র অমিত কুমার। তিনিও সঙ্গীত জগতে নিজস্ব জায়গা তৈরি করে নিয়েছেন। সম্প্রতি অমিত কুমারের কাছ থেকে তাঁর বাবা অর্থাৎ কিশোর কুমারের জীবন নিয়ে বেশ কিছু অজানা কথা জানা গেল।

কিশোর কুমার ব‍্যক্তিগত জীবন নিয়ে বহুবার চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে এসেছেন। বিশেষ করে তাঁর বৈবাহিক জীবন নিয়ে চর্চার, সমালোচনার শেষ নেই। কারণ কিশোর কুমারের মোট চার বার বিয়ে হয়। তাঁর প্রথম স্ত্রী রুমা গুহ ঠাকুরতা। সাত বছরের দাম্পত‍্য জীবন ছিল দুজনের। এরপর বিবাহবিচ্ছেদ হয়। পরবর্তীতে তিনি বিবাহ করেন মধুবালাকে। নয় বছরের বিবাহিত জীবনের পর বিবাহবিচ্ছেদ হয়। তাঁর তৃতীয় স্ত্রী যোগিতা বালি, যার সাথে কিশোর কুমার দু বছর সংসার করেছিলেন। পরবর্তীতে কিশোর কুমার লীনা চন্দ্রভারকরকে বিবাহ করেন।

একটি সাক্ষাৎকারে অমিত কুমার এই প্রসঙ্গে মন্তব্য করলেন। কিশোর কুমার এবং তাঁর প্রথম স্ত্রী রুমা গুহ ঠাকুরতার সন্তান হলেন অমিত কুমার। অমিত কুমার কিশোর কুমারের সম্পর্কে বলেন “বাবা সবসময় একটা পরিবার চাইতেন। পারিবারিক মানুষ ছিলেন। কিন্তু ওঁকে ভুল বোঝা হয়েছে। যেদিন আমার বাবা মায়ের বিচ্ছেদ হয়, সেদিন উনি নিজের মরিস মাইনর গাড়িটা বাংলোতেই পুঁতে দিয়েছিলেন, যেটা প্রথম ছবি ‘আন্দোলন’ ছবির পর মায়ের সঙ্গে উনি কিনেছিলেন। এই ছিল কিশোর কুমার।”

১৯৫১ সালে রুমা গুহ ঠাকুরতার সঙ্গে বিয়ে হয় কিশোর কুমারের। তবে কিশোর কুমার রুমা গুহ ঠাকুরতাকে কেরিয়ার ছেড়ে সংসার করতে বলায় নাকি বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। ১৯৫৮ সালে রুমা গুহ ঠাকুরতার সাথে বিবাহবিচ্ছেদ হয়। পরবর্তীতে কিশোর কুমার পুনরায় বিবাহ করেন একাধিকবার। তবে শেষ পর্যন্ত কিশোর কুমার তাঁর চতুর্থ স্ত্রী লীনা চন্দ্রভারকরের সাথেই ছিলেন। অমিত কুমার লীনা চন্দ্রভারকরের সম্পর্কে বলেন যে, তিনি একজন অসাধারণ লেখিকা। কিশোর কুমারের জীবনের শেষ সময়ে লীনা চন্দ্রভারকর কিশোর কুমারের পাশে ছিলেন।

Back to top button