আপনারা কী জানেন ভগবান জগন্নাথের মূর্তিতে কেন হাত নেই? কারন জানলে আপনিও জেনে নিন

নিজস্ব প্রতিবেদন: আপনি বাঙালি হয়ে যদি পুরী ভ্রমণ না করেন তাহলে আপনি বাঙালি হতে পারেন না পুরীতে জগন্নাথ দেবের দর্শন না করলে অভিযাত্রা সফল হয় না হিন্দু সম্প্রদায় অনুযায়ী পুরি হল একটি ধার্মিক ও পবিত্র স্থান যেখানে হিন্দু ধর্মের তিন দেবদেবীর বাস জগন্নাথ দেব বলরাম দেব এবং সুভদ্রা তবে মন্দিরের প্রধান আকর্ষণ জগন্নাথ দেব ই তবে কখনো কি লক্ষ্য করেছেন যে জগন্নাথ দেবের হাত নেই কেনো ? কী সেই কারণ যে এই দেবমূর্তি কে সম্পূর্ণ না করেই তার প্রতিষ্ঠা করা হলো। আর কেনই বা ছড়িয়ে পড়ল সেই প্রবাদ “ঠুঁটো জগন্নাথ”

পুরান মতে “কলিঙ্গ রাজ্যের রাজার ইচ্ছা হল যে তার প্রিয় ভগবান বিষ্ণুর একটি মন্দির বানাবেন, তবে মন্দির বানালেই তো হবে না, সেখানে ঠাকুরের স্থাপন করতে হবে ।আর সেই চিন্তায় কাটতে থাকে মহারাজের দিন। তিনি তার সমস্যার কথা ব্রহ্মাকে জানান ।আর তিনি  তাকে বলেন বিষ্ণুর ধ্যান করতে, এবং তার থেকেই জেনে নিতে বলেন কি রূপ দেওয়া যায় ঈশ্বরের ।

তাই রাজা ধ্যান করতে শুরু করে দেন এবং দেখা দিয়ে বিষ্ণু দেব বলেন, পুরীর সমুদ্রে যে নিম গাছের কাঠ ভেসে আসবে তা দিয়েই তৈরি করতে হবে মূর্তি। রাজা নিজে গিয়ে সমুদ্র থেকে সেই নিম কাঠ নিয়ে এলেন এবং রাজার দক্ষ শিল্পীরা শুরু করলেন সেটি দিয়ে মূর্তি নির্মাণ করার কাজ।

কিন্তু অবাক করে দেয় সেই নিম কাঠ গুলি যতবারই রাজার বিশিষ্ট শিল্পীরা মূর্তি স্থাপন করতে যায় ততোবারই নিম কাঠ ভেঙে যায়। আবার রাজা পড়লেন বিপদে। ঠিক তখনই মানুষের রূপ নিয়ে বিশ্বকর্মা আসেন তাঁর দরবারে এবং তিনি শুরু করে দেন মূর্তি গড়ার কাজ।

তবে তিনি মূর্তি গরার সময় রাজাকে আদেশ দেন যে, তিনি একা একাই মূর্তি তৈরি করবেন একটি বদ্ধ ঘরের মধ্যে বসে। তাকে যেন কেউ না বিরক্ত করে বা কেউ যেন তার ঘরে ঢুকে না আসে । যদি কেউ তার ঘরে ঢুকে আসে তাহলে সেই কাজ তিনি সেখানে বন্ধ করে চলে যাবেন।

জগন্নাথ দেবের মূর্তি তৈরি করতে থাকেন তার ঘরের বাইরে সৈন্যরা এসে খাবার দিয়ে যেতেন। কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পরে তিনি সেই খাদ্য আর ভক্ষণ করতেন না। এরপরে সন্দেহ জাগে সৈন্যদের মধ্যে তারা রাজাকে গিয়ে ঘটনাটি জানালো এবং রাজা মনে করেন যে হয়তো তার দরবারে আসা শিল্পীর মৃত্যু ঘটেছে ঠিক তৎক্ষণাৎ, রাজা তার দরবার ছেড়ে মন্দিরের দিকে প্রবেশ করেন এবং সেখানে গিয়ে দরজা খুলতেই দেখেন বিশ্বকর্মা দেব তা কাজ করে যাচ্ছেন।

কিন্তু বিশ্বকর্মাদেবের নিয়ম অনুসারে তিনি আর কাজ করলেন না। যেহেতু তার কাজে বিঘ্ন ঘটিয়েছেন রাজা এবং তার ঘরে ঢুকে এসেছেন, সেহেতু তিনি ওই অবস্থাতেই মূর্তি গড়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন আর তখনও জগন্নাথদেবের হাত তৈরি করা হয়নি । আর সেখান থেকেই জগন্নাথ দেব বিনা হাতেই বিরাজমান।

Back to top button