করোনা আবহে পকেট ভেন্টিলেটর আবিষ্কার করে, বিশ্বে সাড়া ফেলে দিলেন বাঙালি বিজ্ঞানী

নিজস্ব প্রতিবেদন: এক বাঙালি বিজ্ঞানী এই করোনা আবহে ‘পকেট ভেন্টিলেটর’ আবিষ্কার করে সারা বিশ্বে সাড়া ফেলে দিলেন। ভেন্টিলেটার তৈরি নিয়ে সমস্যা হচ্ছিল এই করোনা আবহে। অবশেষে কলকাতার এক বিজ্ঞানী রামেন্দ্রলাল মুখোপাধ্যায় এই সমস্যার সমাধান করলেন। ‘পকেট ভেন্টিলেটর’ তৈরি করে করে দিলেন সারা বিশ্বকে।

রোগীকে তাৎক্ষণিক সাহায্য করতে পারবে, তাঁর তৈরি ব্যাটারি চালিত পকেট ভেন্টিলেটর। রামেন্দ্রবাবুর এই আবিষ্কার মৃতপ্রায় ব্যক্তির কাছে সঞ্জীবনীর কাজ করবে। এই যন্ত্র বেশ কয়েকদিন সামাল দিয়ে রাখতে পারবে অক্সিজেনের মাত্রা কে।

বিজ্ঞানী ডাঃ রামেন্দ্রলাল মুখোপাধ্যায় নিজেই বিপদে পড়ে আবিষ্কার করে ফেললেন এই যন্ত্র। তিনিও হয়েছিলেন করোনা ভাইরাসের শিকার, অক্সিজেনের মাত্রা নেমে গিয়েছিল ৮৮ শতাংশে। তখনই তিনি ভেন্টিলেটরের গুরুত্ব বুঝতে পেরেছিলেন। সুস্থ হওয়ার মাত্র ২০ দিনের মধ্যেই তিনি এই অত্যাশ্চর্য ‘পকেট ভেন্টিলেটার’ তৈরি করে ফেললেন।

এই পকেট ভেন্টিলেটরের ওজন মাত্র ২৫০ গ্রাম। একবার চার্জ দিলে ব্যবহার করা যাবে ৮ ঘণ্টা। এই যন্ত্র কে সাধারণ মোবাইল চার্জার দিয়েই চার্জ দেওয়া যাবে। ডাঃ রমেন্দ্রলাল মুখোপাধ্যায় বাবুর বিশ্বাস করোনা রোগীদের অনেক সাহায্য করবে এই যন্ত্র।

এই যন্ত্রটির দুটি ভাগে তৈরি করা হয়েছে। একটি পাওয়ার ইউনিট, অপরটি মাউথপিস যুক্ত ভেন্টিলেটর ইউনিট। এই যন্ত্র আছে আলট্রা ভায়োলেট চেম্বার। যার মাধ্যমে বাইরের বাতাস বিশুদ্ধ হয়ে ফুসফুসে যায়। কোনরকম জীবাণু বাতাসে থাকলে তা এই চেম্বারের মধ্যে দিয়ে যাওয়া কালীন মরে যায়।

এই একই প্রক্রিয়া চলে রোগী যখন নিঃশ্বাস ছাড়ে তখন ও। এই যন্ত্র আল্ট্রাভায়োলেটে শুদ্ধ করে ছাড়ে ওই বাতাসকে। এর ফলে কোন দুশ্চিন্তা থাকেনা রোগীর আশেপাশের কোন মানুষের জন্য। রামেন্দ্র বাবু জানালেন এই যন্ত্র চিকিৎসা কেন্দ্রে ব্যবহৃত সিপ অ্যাপ (কন্টিনিউয়াস পজিটিভ এয়ারওয়ে প্রেশার) যন্ত্রের ছোট বিকল্প।

Back to top button