বাড়ছে মৃত্যুমিছিল,”করোনা দেবী” মন্দির তৈরি প্রতিষ্ঠিত হলো দেশে

নিজস্ব প্রতিবেদনভারতের প্রতিটি অংশে যে হারে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের সংক্রমণ লাগামছাড়া রূপ ধারণ করেছে তাতে খুব শীঘ্রই অত্যন্ত শোচনীয় অবস্থায় পৌঁছে যাবে আমাদের দেশ তা স্পষ্ট। মহারাষ্ট্র ছাড়াও ছত্রিশগড়, দিল্লি, কেরল, গুজরাট, তামিলনাড়ু, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ প্রভৃতি রাজ্যে উত্তরোত্তর বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা।আক্রান্তের সংখ্যার পাশাপাশি মৃত্যুসংখ্যা এতটাই বৃদ্ধি পেয়ে গিয়েছে যে বেশ কয়েক রাজ্যে তা সামলানো মুশকিল হয়ে পড়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে আগেই দৈনিক সংক্রমণ সাড়ে তিন লাখের গণ্ডি অতিক্রম করেছিল।

সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, করোনা সংক্রমণের নিরিখে তামিলনাড়ুর মধ্যে তৃতীয় স্থানে রয়েছে কোয়েম্বত্তুর জেলা। সেখানেও স্বাস্থ্য পরিকাঠামোয় সমস্যা দেখা দিয়েছে। বেড ও অক্সিজেন তীব্র ঘাটতি দেখা যায় সম্প্রতি। সার্বিক পরিস্থিতির জেরে উদ্বিগ্ন জেলাবাসী। এই অবস্থায় কোয়েম্বত্তুর শহরের বাইরে ইরুগুরের কাছে কামাচিপুরমে একটি মন্দির বানিয়েছেন একদল মানুষ। কামাচিপুরম আদিনাম চত্বরে এই মন্দির স্থাপন করেছে কর্তৃপক্ষ।

এক আধিকারিক সংবাদ সংস্থা আইএএনএস-কে জানিয়েছেন, “করোনা দেবী একটি কালো পাথরের মূর্তি। যা ১.৫ ফুট দীর্ঘ। আমরা বিশ্বাস করি যে, এই ভয়ঙ্কর রোগ থেকে মানুষকে রক্ষা করবে করোনা দেবী।“করোনা দেবী”-কে উৎসর্গ করে দক্ষিণ ভারতে এটি দ্বিতীয় মন্দির। এর আগে কেরলের কোল্লাম জেলার কাদাক্কালে মন্দির গড়া হয়েছিল। এক পুরোহিত তাঁর বাড়িতে অস্থায়ীভাবে মন্দির স্থাপন করে এই মূর্তি বসিয়েছিলেন।

Back to top button