বাড়িতে থেকেই করোনা জয় ৯৪ বছরের বৃদ্ধের

নিজস্ব প্রতিবেদনদৃঢ় মনের জোরেই করোনা জয় করে ফেললেন মেদিনীপুরের মিত্র দম্পতি।বাড়ির কর্তা জিতেন্দ্রনাথ মিত্র, তার বয়স ৯৪ বছর।। তার স্ত্রী মানসী মিত্র, এবং তার বয়স ৭৯ বছর। তারা দুজনেই সংক্রমিত হয়েছিলেন।তবে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি কাউকেই।

বাড়িতে থেকেই পর্যবেক্ষণের মাদ্ধমে সুস্থ হন তারা দু’জন। রাজ্যের একজন সহকারী স্বাস্থ্য অধিকর্তা সৌম্যশঙ্কর সারেঙ্গী বলেন যে, ‘‘মানুষের মন থেকে করোনা সম্পর্কে অযথা উদ্বেগ দূর করতে সচেতনতা-প্রচারে ওঁদের কথা উল্লেখ করব। ওঁদের মানসিক শক্তির কথা সকলের কাছে তুলে ধরলে অনেকে মনে জোর পাবেন।’’

এই দম্পতি বসবাস করেন মেদিনীপুরের বিধাননগরে। তার দুই ছেলে, বৌমা, ও নাতি মিলিয়ে ১০ জনের যৌথ পরিবারে বসবাস করেন তারা। জিতেন্দ্রনাথ কেশপুরের কলাগ্রাম একটি হাইস্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক ছিলেন। তাদের পরিবার সূত্রের খবর, প্রথমে করোনা সংক্রমিত হয়ে পড়েন তার স্ত্রী মানসী। এবং তার পরে সংক্রমিত হন জিতেন্দ্রনাথ।

মেদিনীপুরের মেডিক্যালের শিশু বিভাগের প্রধান ডাক্তার তারাপদ ঘোষ তাদের প্রতিবেশী। করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ার পর তাদের পরিবার তার সাথে কথা বলেন।কিন্তু প্রবীণ দম্পতি বলেন যে, হাসপাতালে তারা যেতে চান না। তারাপদ জানান যে, তাদের দু’জনের মধ্যে সবথেকে বেশি অসুস্থ হন মানসীই। তাঁর কাশি বেশি ছিল ও শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা অনেকটাই কমে গেছিল।

করোনাকে এই ভাবে জয় করে মানসী বলেন যে ‘‘ডাক্তারবাবু আমাদের কাছে ভগবান। প্রতিটি পরামর্শ মেনেছি। ওঁর জন্যই এখনও বেঁচে আছি।’’ আর তারাপদ বলেন, ‘‘নিয়ম মানলে বাড়িতে থেকেও যে সুস্থ হওয়া যায়, করোনাকে কাবু করা যায়, সেটা এই বয়সেও জিতেন্দ্রনাথ দেখিয়ে দিয়েছেন। এই ধরনের ঘটনা দৃষ্টান্তই।’’ সাথে করোনা- জয়ী জিতেন্দ্রনাথবাবু আর্জি করেন যে, ‘‘করোনা টিকা নেওয়া হয়নি। টিকা যদি বাড়িতে এসে দিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করে প্রশাসন, খুব ভাল হয়।’’।

Back to top button