ফুসফুসের দীর্ঘ মেয়াদী ক্ষতি করছে করোনা, বলছে গবেষণা

নিজস্ব প্রতিবেদন: রোগী সুস্থ হয়ে উঠলেও দুর্বল তার ফুসফুস দুর্বল থাকছে। কোভিড রোগীর সুস্থ হওয়ার পর হাসাপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার তিন মাস পরও তাদের সম্পূর্ণ ভাবে সুস্থ হচ্ছে না ফুসফুস। এমনকী তিন মাসে কেটে গেলেও ফুসফুসের দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি করেছে এই করোনা। সাম্প্রতিক গবেষণায় পাওয়া যাচ্ছে এমন তথ্য।

সিটি স্ক্যান, ও বিভিন্ন মেডিক্যাল টেস্টেও ধরা পড়ছে না ফুসফুসের আসল লক্ষণ। ডাক্তাররা রিপোর্ট দেখে বলে দিচ্ছেন যে সব ঠিকই আছে। যদিও কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকেই দীর্ঘ মেয়াদী ক্ষত থেকে যাচ্ছে ফুসফুসে। সম্প্রতি ব্রিটেনে ইউনিভার্সিটি অফ শেফিল্ড ও অক্সফোর্ডের গবেষণায় উঠে এসেছে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য। রেডিওলজি জার্নালে প্ৰকাশ করা হয় এই গবেষণা।

গবেষক দের মতে কোভিডে আক্রান্ত রোগী বাদেও এই অবস্থা হতে পারে অন্য আরো সাধারণ ব্যক্তিদের। যাদের দীর্ঘদিন ধরে যাদের শ্বাসকষ্ট সমস্যা রয়েছে, এমন ব্যক্তিদেরও ফুসফুস দুর্বল হয়ে পড়তে পারে। দীর্ঘ মেয়াদী ক্ষতি হতে পারে ফুসফুসের। যদিও এখনই এই নিয়ে নিশ্চিত কিছু জানায়নি গবেষকরা। তাঁরা জানিয়েছেন, এই বিষয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত হতে আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে।

হাইপার পোলারাইজড জেনন এমআরআই স্ক্যান করার পরই কোভিড জয়ীদের ফুসফুসের এই অবস্থা বুঝতে পারেন তাঁরা। কিছু ক্ষেত্রে কোভিড থেকে সুস্থ হওয়ার ৯ মাস পরও থেকে যাচ্ছে ফুসফুসের এই জটিলতা। সাধারণ ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা করে রোগীর অন্যান্য তেমন কোনও রোগ ধরা পড়ছে না।

এ প্রসঙ্গে ইউনিভার্সিটি অফ শেভিল্ড-এর অধ্যাপক জিম ওয়াইল্ড তিনি বলেন যে, “গবেষণায় যে তথ্য উঠে এসেছে তা খুবই আকর্ষণীয়।” একই সুর শোনা গিয়েছে অক্সফোর্ডের গবেষক ফার্গুস গ্লিসেনের মুখে। তিনি বলেন, হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর অনেক রোগীরই শ্বাসকষ্ট দেখা দিচ্ছে। যদিও সিটি স্ক্যানে দেখা যাচ্ছে, তাদের ফুসফুস স্বাভাবিক কাজ করছে। যদিও গ্লিসনের দাবি, হাইপার পোলারাইজড জেনন এমআরআইতে ধরা পড়ছে ফুসফুসের আসল অবস্থা। দেখা যায় যে, ফুসফুসে অক্সিজেন স্বাভাবিক ভাবে পৌঁছতে পারছে না। যার ফলে কোভিড আক্রান্ত রোগীদের শ্বাসকষ্টে ভুগতে হচ্ছে।।

Back to top button