“জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করুন, জমি দখল বরদাস্ত করব না” সংখ্যালঘুদের স্পষ্ট বার্তা হিমন্ত বিশ্বশর্মার

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজ্যে দারিদ্রতা কম করার জন্য সংখ্যালঘুদের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের বার্তা দিলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বকর্মা। তিনিও স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন ওনার রাজ্যে চলবে না কোন মন্দির, বনভূমি সহ বিভিন্ন জমি দখল। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী পদে ৩০ দিন পূর্ণ না হওয়ার আগেই এই বার্তা দিলেন তিনি।

হিমন্ত বিশ্বশর্মা জানিয়েছেন,” সংখ্যালঘুরা পরিবার নিয়োজন নীতি আপন করে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করো।” তাঁর মতে জনসংখ্যার অত্যাধিক বৃদ্ধিই দারিদ্রতার প্রধান কারণ। এ সমস্যা সমাধানে সরকার সাহায্যের জন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে বলেছে। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন,” সরকার প্রতিবদ্ধ গরিবদের সাহায্য করার জন্য। কিন্তু অতিরিক্ত জনসংখ্যা বৃদ্ধি দারিদ্রতা এবং শিক্ষার প্রধান কারণ। এই দারিদ্রতা নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে সাহায্য চাই সংখ্যালঘুদের।”

পরে তিনি আরো যোগ করে বলেন,” সংখ্যালঘু মহিলাদের শিক্ষার ক্ষেত্রে কাজ করবে সরকার। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষদের সচেতন করাই ওই সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের কাজ। মন্দির, বনভূমির জমিতে দখলদারি কোন পরিস্থিতিতেই বরদাস্ত করবে না সরকার।” তিনি আশ্বাস দিয়েছেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে না।

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণ করার পরই হিমন্ত বিশ্বশর্মা স্পষ্ট জানিয়ে দেন, যেখানে হিন্দুদের বসবাস সেখানে গোহত্যা করা যাবে না। এছাড়াও তিনি বিজেপি ঘোষণাপত্রে কথা উল্লেখ করেন এবং নির্দেশ দেন সরকারি জমি, মন্দির আর বনভূমি থেকে দখলদারি হটানোর। অ্যাকশন নিয়ে প্রশাসন ৪০০ বিঘা জমি অধিগ্রহণ থেকে মুক্ত করিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর এই নির্দেশের পরই।

Back to top button