“সিবিআইয়ের আইনজীবীর তত্ত্ব আদালতে খাটেনি।”- চার নেতার জামিন পাওয়ার পর বললেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: নারদ কাণ্ডে ধৃত তিন হেভিওয়েট নেতা ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়ের অন্তর্বর্তী জামিন মঞ্জুর করল কলকাতা হাই কোর্টের পাঁচ বিচারপতির বৃহত্তর বেঞ্চ। ২ লক্ষ টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে তাঁদের অন্তর্বর্তী জামিনের নির্দেশ দিল কলকাতা হাই কোর্ট।

সিবিআই আদালতে আবেদন করেছিলো এই মামলা অন্যত্র সরানোর।কিন্তু আদালত তাদের আবেদন খারিজ করে দেয়। পাশাপাশি বিচারপতির বৃহত্তর বেঞ্চ জানিয়েছে মানুষের আবেগ আদলতের বিচার ব্যবস্থায় প্রভাব ফেলতে পারে না।অবশেষে জানা গিয়েছে জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়েছে ফিরহাদ হাকিম, মদন মিত্র, সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। শর্তসাপেক্ষে জামিন দেওয়া হয়েছে তাদের।

রাজ্য সরকারের আইনজীবী তথা সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “গতকাল যখন মামলার হিয়ারিং হয়, তখন আমি বলেছিলাম আমাদের রিকলিং আবেদন আগে শুনতে হবে। সংবিধানে বলা আছে আগে রিকলিং অ্যাপ্লিকেশন শুনতে হবে ১৪ দিনের মধ্যে। তাঁদের জামিন দেওয়ার সময় সলিসিটর জেনারেল বিরোধিতা করে বলেছিলেন যে উনারা খুব প্রভাবশালী লোক, উনারা প্রমাণ নষ্ট করে দিতে পারেন।তখন বিচারক বলেছেন যে, ২০১৭ থেকে ২০২১ এর মধ্যে তাহলে উক্ত নেতালা প্রভাব খাটাননি কেন? আমরা বলেছি যে, ২০১৭ থেকে ২০২১ পর্যন্ত সিবিআই যতবার ডেকেছে উনারা হাজিরা দিয়েছে। আদালত কন্ডিশন দিয়েছে যে, জামিনে মুক্ত প্রত্যেক নেতাদের ২ লক্ষ টাকা করে বন্ড দিতে হবে। তারা কোনোরকম কথা এই মামলার প্রসঙ্গে বলতে পারবেন না। তাঁদের সবসময়ই তদন্তে সহযোগীতা করতে হবে।”

 

Back to top button