চার নেতাকে গৃহবন্দি করার নির্দেশ, ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ মোডেই কাজ করবেন ববি-সুব্রত

বং ট্রেন্ডি ডেস্ক: নারদ মামলা কে ঘিরে তৈরি হয়েছে অশান্তি ,জটিলতা। আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে জামিন নিয়ে দুই বিচারপতির মধ্যে চলে বচসা। বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় জামিন মঞ্জুরের পক্ষে কিন্তু ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দাল জামিনের বিপক্ষে। তাই আদালত সূত্রের খবর অনুযায়ী এই মামলায় বৃহত্তর বেঞ্চ তৈরি হবে। আর ততদিন চার হেভিওয়েট নেতাদের আর রাখা হবে না জেল হেফাজতে। তাদেরকে নজরবন্দি করে রাখা হবে নিজ ভবনের মধ্যে।

বাড়ি থেকেই প্রশাসনিক কাজ করতে পারবেন পরিবহন মন্ত্রী তথা পুর প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম ও পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। গত কয়েকদিনে নাটকীয় মোড় নিয়েছে বছর পাঁচেকের পুরনো নারদ মামলা। এই নিয়ে দ্বিতীয় দিনে পড়ল হাই প্রোফাইল সেই মামলার শুনানি। গত সোমবার পরিবহন মন্ত্রী  ফিরহাদ হাকিম, পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, বিধায়ক মদন মিত্র ও আর এক নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করে সিবিআই। এরপর শারীরিক অসুস্থতার কারণে এসএসকেএম নিয়ে যাওয়া হয় সুব্রত, মদন, শোভনকে। অন্য দিকে প্রেসিডেন্সি জেলে রয়েছেন ফিরহাদ হাকিম। গত বুধবার এই মামলার প্রথম শুনানি ছিল হাইকোর্টে। সে দিন ৪ নেতার জামিন নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি হাই কোর্ট। বৃহস্পতিবার অনিবার্য কারণ বশত শুনানি স্থগিত হয়ে যায়। আজ, শুক্রবার ফের শুনানি হয় হাইকোর্টে।

তাদের কে মুক্ত করার উদ্দেশ্যে আজ যে শুনানি হয়েছিল তাতে দ্বিমত হয়ে পড়েন বিচারকেরা। আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে জামিন নিয়ে দুই বিচারপতির মধ্যে চলে বচসা । বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় জামিন মঞ্জুরের পক্ষে কিন্তু ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দাল জামিনের বিপক্ষে । তাই আদালত সূত্রের খবর অনুযায়ী এই মামলায় বৃহত্তর বেঞ্চ তৈরি হবে। আর ততদিন চার হেভিওয়েট নেতাদের আর রাখা হবে না জেল হেফাজতে। তাদেরকে নজরবন্দি করে রাখা হবে নিজ ভবনের মধ্যে।

Back to top button