বাংলায় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে বিজেপি, অর্জুন তৃণমূলে ফেরার পরই বড় দাবি রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক: দীর্ঘ কয়েকদিনের সমস্ত জল্পনা কল্পনাকে সত্য প্রমাণ করে ব্যারাকপুরের সাংসদ গেরুয়া শিবির ছেড়ে যোগ দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে। 3 বছর ধরে বি জে পি -র সদস্য থাকার পর এই সিদ্ধান্ত তাঁর। মন্ত্রী পিযূষ গোয়েলের বিরুদ্ধেও তাঁকে বলতে শোনা গেছে। রবিবার বিকেলে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জির উপস্থিতিতে তৃণমূলে পদার্পণ করেন ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং।

রবিবার দুপুরে অর্জুন সিং সাংবাদিক বৈঠক শেষ করে ভাটপাড়া থেকে কলকাতার দিকে রওনা দেন। এই নিয়ে জল্পনা শুরু হতে থাকে যে তিনি হয়ত অভিষেক ব্যানার্জির ক্যামাক স্ট্রিটের কার্যালয়ে যাবেন। কিন্তু সেই জল্পনাকে মিথ্যে প্রমাণিত করে তিনি আলিপুরের একটি অভিজাত হোটেলে যান। জানা যায় তাঁর এক বন্ধুর সাথে দেখা করতে সেখানে গেছিলেন তিনি। এরপর 4 টে 15 নাগাদ উক্ত হোটেল থেকে বেরিয়ে কামাক স্ট্রিটে যান তিনি।

এদিন সেখানে পশ্চিমবঙ্গের বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, নৈহাটির তৃণমূল বিধায়ক পার্থ ভৌমিক, আমডাঙার তৃণমূল বিধায়ক রফিকুল রহমান, ব্যারাকপুরের বিধায়ক রাজ চক্রবর্তী উপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘ সময় ধরে বৈঠকের মাঝেই অর্জুন সিং এর ফেসবুকের প্রোফাইল পিকও বদলে যায়। 2019 সালে দিল্লি যান অর্জুন সিং। এর পরই দলবদল করে বি জে পি তে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। সেই সভায় মুকুল রায়ও উপস্থিত ছিলেন।

তিনি জানান বর্তমানে বি জে পি শুধু ফেসবুকেই সীমাবদ্ধ, অনেকদিন ধরেই তিনি তৃণমূল করছেন। এদিন তা আনুষ্ঠানিকভাবে সকলকে জানিয়ে দিলেন তিনি। এই প্রসঙ্গে মদন মিত্র বলেন যে অর্জুন সিং সত্যিই বহুদিন ধরে তৃণমূল করছেন। নেত্রী মমতা ব্যানার্জির সিদ্ধান্তই দলের সিদ্ধান্ত। তিনি আরও বলেন মমতা ব্যানার্জির রক্ত দিয়ে এই দল তৈরি। প্রসঙ্গত বলে রাখি পাট শিল্প নিয়ে কেন্দ্র সরকারের সাথে বহুদিন ধরে বাকবিতণ্ডা চলছিল তাঁর। মমতা ব্যানার্জিও কেন্দ্র সরকারকে পাট শিল্প নিয়ে চিঠি লেখেন কিন্তু তার কোনো উত্তর দেওয়া হয়নি। এরপরই অর্জুন সিং দলবদল করেন।

অর্জুন সিং তৃণমূলে ফেরার পর টুইট করে তাকে স্বাগত জানিয়েছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জি। তিনি সরাসরি বলেছেন এক সময় বাংলায় আর বি জে পি -র চিহ্ন থাকবে না। এই প্রসঙ্গে এবার মুখ খুলেছেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তিনি বলেছেন, “এই রাজ্যে ব্যবসা আর রাজনীতি দুই করতে গেলে তৃণমূল করতেই হবে। অর্জুন সিং ডেঁপো ভাইপোর থেকে মালা পরলেন।

যেভাবে ছাগলকে মালা পরিয়ে বলির জন্য হাঁড়িকাঠে দেওয়া হয়, অর্জুন সিংয়ের অবস্থাও তাই। এস এস সি দুর্নীতির মূল নায়ক অভিষেক ব্যানার্জির হাত ধরে তৃণমূলে যোগদান অর্জুনের কাছে মৃত্যুর সমান। …” এরপর তিনি আরও বলেন 2000 সাল থেকে অর্জুন সিং কাউন্সিলর বিধায়ক। কিন্তু তিনি কখনও পাট সমস্যার সমাধান করতে পারেননি। অপরদিকে সৌমিত্র খাঁ ও শুভেন্দু অধিকারী অমিত শাহের সাথে যোগাযোগ করে নরেন্দ্র মোদীর মাধ্যমে 15 দিনের মধ্যে সমাধান করে ছিলেন। তার মতে অর্জুন সিং পাট সমস্যার জন্য নয়, বি জে পি তার ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছিল তাই দলবদল করেছেন।

Back to top button