বলিউডের ৬ প্রতিভাবান তারকা যারা খুব কম বয়সেই মারা গিয়েছেন

নিজস্ব প্রতিবেদন: অভিনেতাদের স্বপ্নের জগৎ হল বলিউড। এই বলিউডে এরকম অনেক উদাহরণ আছে যারা অনেক কম বয়সে আমাদেরকে ছেড়ে চলে গেছেন।আসুন তাদেরকে এক নজরে দেখে নেওয়া যাক।

১. সুশান্ত সিং রাজপুত :- গতবছর ১৪ই জুন হঠাৎই মুম্বাইয়ের বান্দ্রার ফ্ল্যাটে তার ঝুলন্ত দেহ দেখতে পাওয়া যায়। এটা আত্মহত্যা না খুন সেই জট আজও কাটেনি। সুশান্তের মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনও জানা যায়নি।

২. জিয়া খান :- ২০১৩ সালের ৩ রা জুন ২৫ বছরের জিয়ার দেহ তারই ঘরে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখা যায়। তাঁর একটি সুইসাইড নোটও পাওয়া যায়, যেখানে তিনি কারণ হিসাবে অভিনেতা সুরজ পাঞ্চোলির সাথে তৈরি হওয়া সম্পর্ক এবং তার থেকে হওয়া অসম্মানের কথা লিখে গিয়েছিলেন।

৩. ইন্দ্রকুমার :- এই অভিনেতা তার হৃদ রোগের কারণে ২০১৭ সালে নিজের বাড়িতেই মারা যান । আমরা তাকে সাধারণত হিন্দি সিনেমার খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখছি। ওয়ান্টেড, মাসুম ছাড়াও আরও অনেক ছবিতে তাকে অসাধারণ অভিনয় করতে দেখছি আমরা।

৪. সিল্কস্মিতা :- সিল্কস্মিতা ৭০ এর দশকে হিন্দি এবং সাউথের সিনেমাগুলোর অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন। যদিও তাঁর আসল নাম সিল্কস্মিতা নয়। তিনি মাত্র ৩৬ বছর বয়সেই আত্মহত্যা করেছিলেন।

৫. গুরু দত্ত :- মদ্যপান ও মাদকের ওভারডোজে মাত্র ৩৯ বছর বয়সে ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা এই অভিনেতা, প্রযোজক, পরিচালকের মৃত্যু হয়। চৌধবী কা চাঁদ, পেয়াসা, সাহেব বিবি গোলাম ছাড়াও আরও অনেক জনপ্রিয় ছবি বানিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর মৃত্যুর পর অন্য কথা জানা যায়। একসময় বাঙালি মেয়ে গীতার সঙ্গে প্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ হোয়েছিলেন তিনি। পরে বিয়েও করেন গীতাকে। কিন্তু বিয়ের পর অভিনেত্রী ওয়াহিদা রহমানের সাথে সম্পর্ক শুরু হয় গুরু দত্তের। একথা জানার পর গীতা তার সন্তানদের নিয়ে আলাদা থাকতে শুরু করেন। গুরু পরে তার ভুল বুঝতে পারলেও গীতা কোনো দিন আর তার কাছে ফিরে আসেননি। সেই কারণে গুরু দত্ত প্রচুর নেশা করতেন এবং একদিন এই নেশার ওভারডোজে মৃত্যু হয় তার।

৬. দিব্যা ভারতী :- মুম্বইয়ের একটি বিল্ডিংয়ের ৫ তলার জানলা থেকে নীচে পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয় অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর। এই ঘটনাটি ঘটে ১৯৯৩ সালের ৫ই এপ্রিল। মাত্র ১৯ বছর বয়সে মৃত্যু hoy তার। এটা কোনো দুর্ঘটনা নাকি আত্মহত্যা নাকি খুন! আজও সে ব্যাপারে কিচ্ছু জানা যায়নি।

Back to top button