চাকরি খোয়ালেন ২৬৯ জন প্রাইমারি শিক্ষক, দুর্নীতি ঠেকাতে সিবিআই

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক: এখন তাবড় তাবড় নেতা মন্ত্রীদের দুঃস্বপ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে বিচারপতি অভিজিৎ গাঙ্গুলী। প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো নেতা মন্ত্রীকে নাকানিচোবানি খাওয়াচ্ছেন তিনি। আইজীবীদের একাংশের মতে বহু কাল একাধিক মামলায় দিনের পর দিন শুনানি, সিঙ্গেল বেঞ্চ রায় দেওয়ার পরেই রাতের বেলা এজলাস বসতে দেখেননি তারা। এখন বিচারপতি অভিজিৎ গাঙ্গুলী চাকরিপ্রার্থীদের ন্যায্য বিচার দিতে কোনো কিছু ত্রুটি না রাখার পণ নিয়েছেন। এই সময়ে দাঁড়িয়ে বহু মানুষের আশার আলো তিনি। আবার বড়ো বড়ো নেতা মন্ত্রীদের কাছে তিনিই চক্ষুশূল।

নিজের চাকরি জীবন শুরু করেছিলেন সরকারি চাকরির মাধ্যমে। এরপর আইন নিয়ে পড়াশোনা করে আইনজীবী হন। দীর্ঘদিন প্র্যাকটিস করার পর 2018 সালে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হন এবং 2020 সালে কোলকাতা হাইকোর্টের স্থায়ী বিচারপতি হন। এহেন জাস্টিস গাঙ্গুলী নিজেই বলেছেন তার এস এস সি তে কোনো ভরসা নেই। যেখানে যোগ্য হয়েও আজও বেকার এবং অযোগ্যরা শুধু ক্ষমতাবান দের তোষামোদ করে এগিয়ে যাচ্ছে সেখানে তার কোনো বিশ্বাস নেই। কিন্তু মাথায় বন্দুক ঠেকালেও তিনি পিছে হাঁটবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন। মন্ত্রী পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারীর ঘুষ দিয়ে চাকরি পাওয়ার ব্যাপারেও তিনি ব্যবস্থা নিয়েছেন।

সম্প্রতি স্কুল সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষা ও নিয়োগে দুর্নীতির প্রচুর অভিযোগ জমা পড়েছে আদালতে। তার মধ্যে বেশ কিছুর সত্যতা ইতিমধ্যে প্রমাণও হয়ে গেছে। আজ আমরা বর্তমানে ভাইরাল হওয়া এমনই একটি খবর সম্বন্ধে জানাতে এসেছি। চলুন জেনে নিই বিস্তারিত-

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী হলেন পরেশ অধিকারী। তার মেয়ে অঙ্কিতা অধিকারী গত 41 মাস ধরে কোচবিহারের মেখলিগঞ্জের ইন্দিরা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে চাকরি করেছেন। 2018 সালে এই স্কুলে চাকরি সূত্রে যোগদান করে চলতি বছরের এপ্রিল মাস পর্যন্ত চাকরি করেছেন তিনি। তার পরই ঘটে বিপত্তি।

স্কুল সার্ভিস কমিশনের চাকরি প্রার্থী ববিতা সরকার অঙ্কিতা অধিকারীর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে কেস করেন। জানান পরীক্ষায় তার থেকে কম নং পেয়েও চাকরি পেয়ে গেছেন অঙ্কিতা। এরপরই শুরু হয় তদন্ত। ঘটনার সত্যতা প্রমাণ হওয়ায় হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে এই 41 মাসে যত মাইনে অঙ্কিতা পেয়েছে সব দুই কিস্তিতে ফেরত দিতে হবে আদালতে। এই নির্দেশ পেশ হওয়ার সাথে সাথেই ইন্দিরা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা করণিকদের দিয়ে হিসেব করান। যদিও এখনও স্কুলে কোনো নির্দেশিকা পৌঁছায় নি। হিসেবে করে জানা যাচ্ছে প্রায় 16 লাখ টাকা মাইনে পেয়েছে অঙ্কিতা এই 41 মাসে। যা তাকে 7 ই জুন ও 7 ই জুলাই দুই কিস্তিতে ফেরত দিতে হবে তাকে।

2014 সালের প্রাইমারি টেট পরীক্ষা সংক্রান্ত যেই দুর্নীতির মামলা চলছিল তার জেরে সোমবার কোলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গাঙ্গুলীর নির্দেশ চাকরি থেকে বরখাস্ত হলেন 269 জন। টেট পাশ না করেও অনেকে চাকরি পেয়েছেন। তা কীভাবে সম্ভব হয়েছে এর উত্তর খোঁজার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সিবিআই কে। এছাড়াও এই মামলা সংক্রান্ত সকল নথি সংগ্রহ ও সংরক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল ইনফরমেটিভ সেন্টার কে।

Back to top button