‘নূপুর শর্মার সমর্থনে রাস্তায় নামবে ১৮ লক্ষ নাগা সাধু”, বড় ঘোষণা মহন্তের! ভাইরাল ভিডিও

বংট্রেন্ডি অনলাইন ডেস্ক:  সম্প্রতি বিজেপি মুখপাত্র নুপুর শর্মা প্রফেট হযরত মুহাম্মদ সম্পর্কে বিতর্কিত মতবাদ পেশ করায় ভারত তথা গোটা বিশ্ব তোলপাড় হয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন মুসলিম রাষ্ট্র সরব হয়েছে নুপুর শর্মার এই বিতর্কিত মতবাদের বিরুদ্ধে। এই প্রসঙ্গে এবার মুখ খুললেন বলিউডের বিখ্যাত অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহ।

নাসিরুদ্দিন শাহ বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির এই ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করা প্রয়োজন। নুপুর শর্মা বিজেপির মুখপাত্র, তাই যা খুশি তিনিই বলতে পারেন না। এর জন্য তাকে উপর মহলের সাথে শলাপরামর্শ অবশ্যই করতে হয়েছে। তার মতে বিজেপি সদস্যরা এই ব্যাপারে আগে থেকেই অবগত ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে এই বক্তব্যের কারণে পরিস্থিতি উত্তাল হচ্ছে। তাই নরেন্দ্র মোদির এই ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করা একান্তই প্রয়োজনীয় বলে তার মনে হয়েছে। তিনি আরো জানিয়েছেন নুপুর শর্মার বক্তব্যকে তিনি যেমন মানেন না তেমনই তাকে খু-ন ও ধ-র্ষ-ণে-র যে হু-ম-কি দেওয়া হচ্ছে তারও পক্ষে তিনি নন। এইসব কারণে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের অবস্থা এত শোচনীয়। তিনি চান না ভারতের অবস্থাও একই হোক।

তিনি আরো বলেন কখনো কোন ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের হিন্দু দেব-দেবী সম্পর্কে তুচ্ছ মতামত পেশ করতে দেখেননি। তাহলে একজন হিন্দু হয়ে কিভাবে নুপুর শর্মা এই কাজ করলেন! এছাড়াও তিনি বলেছেন কেবলমাত্র মমতা ব্যানার্জি কে সাপোর্ট করার জন্য শাহরুখ খানের ছেলের বিরুদ্ধে অত বড় কন্ট্রোভার্সি তৈরি করা হয়েছিল। ওই পরিস্থিতি যেইভাবে বলিউডের বাদশা ধৈর্য ও বুদ্ধিমত্তার সাথে সামলেছিলেন তার প্রশংসা করেছেন নাসিরুদ্দিন শাহ। তার মতে যারা সংখ্যালঘু বলে ভারতে থাকতে ভয় পায় তাদের দলে তিনি নন। তিনি ভারতে ভালই আছেন বলে জানিয়েছেন। আর তিনি নিজেকে সংখ্যালঘু মনে করেন না।

এই প্রসঙ্গে সম্প্রতি একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। পাতালপুরী মঠের প্রধান মহন্ত বালক দাস এই ভিডিও তে জানিয়েছেন 18 লক্ষ নাগা সাধু রাস্তায় নেমে নুপুর শর্মাকে সাপোর্ট করবেন। হরতীর্থের বারাণসী সুদাম কুটিতে ধর্ম পরিষদ দ্বারা একটি সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছিল। যেখানে পাতালপুরী মঠের প্রধান মহন্ত বালক দাস আরও জানান যে নুপুর শর্মাকে ক্রমাগত খু-ন ও ধ-র্ষ-ণে-র হু-ম-কি দেওয়া হচ্ছে। এমন চলতে থাকলে হিন্দুরাও চুপ থাকবে না। বর্তমানে গোটা দেশে নৈ-রা-জ্য ছড়িয়ে পড়েছে বলে তার মনে হচ্ছে। ভগবান শিবকে নিয়ে এক শ্রেণীর মানুষ মজা করেছে। তার পরেও হিন্দুরা চুপ ছিল। কিন্তু এমন চলতে থাকলে বেশিদিন আর হিন্দুরা চুপ থাকবে না।

Back to top button