বিজেপির ১১ জন বিধায়ক সাংসদ যোগাযোগ রাখছেন তৃণমূলের সঙ্গে! বিস্ফোরক দাবি কুণাল ঘোষের

নিজস্ব প্রতিবেদনবিজেপির (BJP) সাত-আট জন বিধায়ক তৃণমূলের (TMC) সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। তিনজন সাংসদ যোগাযোগে রয়েছেন, এদিন কুণাল ঘোষ জি ২৪ ঘণ্টায় এমনই দাবি করলেন। সাফ জানিয়ে দিলেন, দলবদলুদের দলে ফেরানোর বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এখন কোভিড বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

রবিবার জি ২৪ ঘণ্টায় তৃণমূলের মুখপাত্র বললেন, ‘শুধুমাত্র দল থেকে যাওয়া ব্যক্তিরা নন, বিজেপির (BJP) সাত-আট জন বিধায়ক এবং তিনজন সাংসদও তৃণমূলের (TMC) সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন৷ তবে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee), অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সি, পার্থ চট্টোপাধ্যায়-সহ সংশ্লিষ্ট শীর্ষ নেতৃত্ব৷ সিদ্ধান্ত হলে সবাই জানতে পারবেন৷’ একুশের বিধানসভা ভোটেও রাজ্যবাসী ‘বাংলার মেয়ে’র উপরেই ভরসা রেখেছে ৷ তবে এই প্রথম বারই ৭৭ জন বিধায়ককে নিয়ে বিধানসভায় বিরোধী দলের তকমা পেয়েছে বিজেপি।

ইতিমধ্যেই বিজেপির দু’জন বিধায়ক পদ থেকে ইস্তাফা দিয়েছেন, রানাঘাটের সাংসদ তথা শান্তিপুর বিধানসভা থেকে জিতে আসা জগন্নাথ সরকার ও কোচবিহারের সাংসদ তথা দিনহাটা বিধানসভা থেকে জিতে আসা নীশিথ প্রামাণিক৷ তাঁরা সাংসদ পদেই থাকবেন বলে জানিয়েছেন। ফলে বর্তমানে বিধানসভায় বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ৭৫৷ জি ২৪ ঘণ্টায় করা তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষের করা দাবি সত্যি হলে, বিজেপির ভাঙন আসন্ন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ তাঁদের মতে, এখন এই ৭৫ জন বিধায়ককে ধরে রাখাই গেরুয়া শিবিরের কাছে সবচেয়ে বেশি জরুরি৷

Back to top button