আমফানের দুর্যোগকেও ছাপিয়ে যাবে “যশ”

নিজস্ব প্রতিবেদনঘূর্ণিঝড় ‘যশ’ জন্ম নিচ্ছে পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগর ও উত্তর আন্দামান সাগরে। ২২ শে মে নিম্নচাপ অক্ষরেখার সৃষ্টি হতে পারে এবং ২৪ মে নাগাদ সৃষ্টি হতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘যশ’, এমনটাই জানানো হয়েছে আবহাওয়া দপ্তরের তরফ থেকে। ক্রমশ ঘূর্ণিঝড়ের (Cyclone) চেহারা নিচ্ছে ইয়াস (Yaas)। আছড়ে পড়তে পারে পশ্চিমবঙ্গেই।

আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, ২৬ শে মে পশ্চিমবঙ্গ উড়িষ্যা উপকূলে সন্ধ্যার দিকে পড়তে পারে এই ঘূর্ণিঝড়। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় ২৫ তারিখ থেকে বৃষ্টি শুরু হবে এবং পরে তা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকবে, এমনটাই জানিয়েছে হাওয়া অফিস। উপকূলে বুধবার সকালেই ঝড়ের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টা ১০০ কিলোমিটার। পরে ঝড়ের দাপট আরও বাড়বে। সতর্কবার্তা আবহাওয়া দফতরের।

বুধবার সন্ধ্যা থেকেই ইয়াস বাংলার উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে, তা স্পষ্ট করে দিলেন আবহাওয়াবিদরা। ঘূর্ণিঝড় ইয়াস যে নিম্নচাপ থেকে তৈরি হওয়ার কথা ছিল, তা শনিবারই বঙ্গোপসাগরে তৈরি হয়েছে। কলকাতা থেকে দূরত্ব ৭০০ কিলোমিটার। এই ৭০০ কিলোমিটারের মধ্যেই ইয়াস দফায় দফায় তার শক্তি বাড়াবে।

সোমবার দু’দফায় শক্তি বাড়িয়ে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা। মঙ্গলবার পরিণত হতে পারে অতি তীব্র ঘূর্ণিঝড়। বুধবার আরও শক্তি বাড়িয়ে আছড়ে পড়তে পারে পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে। ঠিক কোথায় ল্যান্ডফল করবে, তা স্পষ্ট হতে পারে সোমবারের মধ্যেই। ওড়িশা লাগোয়া পূর্ব মেদিনীপুর নাকি বাংলাদেশ লাগোয়া সুন্দরবন- কোথায় ল্যান্ডফল করবে, তা ডিপ্রেশনের পরই স্পষ্ট হবে।

Back to top button