নিজের মৃত্যুর তারিখ জানালেন বাংলাদেশি গায়ক নোবেল

নিজস্ব প্রতিবেদন: রবিবার রাতে নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এক পোস্টে তিনি তার মৃত্যুর তারিখ জানান। পোস্টে লেখেন, ‘নাম: মাইনুল আহসান নোবল। জন্ম: ৭ নভেম্বর, ১৯৯৭। মৃত্যু: ১৮ মে, ২০২১। বয়স: ২৩ বছর’। এরই কিছুক্ষণ আগে আরেক পোস্টে নোবেল জানান যে, ‘গান বাজনাকে ইতি। মেহেরবান রিলিজ হইলে হইলো, না হইলে নাই। কিন্তু যারা আমার পেছনে লাগতেসে, এগুলারে দেখবো আজকের থেকে। বেয়াদব না? ঠিকাছে। সিনিয়র জুনিয়র, সব। আসো খেলি! গোপালীর খেল শুরু। শালা বি এন পি তাই না? দেখি কেমনে টিকিস।’

গায়ক মাইনুল আহসান নোবেল তিনি পরিচিত হয়েছেন জি বাংলার সংগীত রিয়েলিটি শো থেকে। কভার করেছেন দেশের লিজেন্ডদের গান। রাতারাতি খ্যাতি অর্জন করেন নোবেল খ্যাতি পাওয়ার পর একাধিক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের সঙ্গে নিজেকে জড়িত ফেলেছিলেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষ করে পোস্ট করা, দেশের জাতীয় সংগীত নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করা, লিজেন্ড শিল্পীদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস করেছিলেন নোবেল। সবশেষ পথ দুর্ঘটনায় এক বৃদ্ধকে বাঁচানোর মিথ্যা গল্প শুনিয়েছিলেন তিনি।

এরপর নগর বাউল জেমসকে নিয়ে আপত্তিকর ও কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস করেছেন তিনি। জনপ্রিয় গীতিকার-সুরকার ইথুন বাবুকে ‘চোর’ বলেছেন নোবেল। যদিও নোবেল দাবি করছেন, তার ফেসবুক হ্যাক করা হয়েছে। তবে পুরোপুরি নয়, আংশিক ভাবে।  সেই বিতর্কের রেশ কাটতে না কাটতেই নতুন বিতর্কে জড়িয়ে গেলেন নোবেল। গানের সুর ও সংগীতায়োজনের মালিকানা নিয়ে সংগীত পরিচালক আহমেদ হুমায়ূনের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে গেলেন তিনি। তিনি নিজের ফেসবুকে এ ব্যাপারে লিখেছেন, ‘এই শাস্তি আমার জন্য প্রাপ্য ছিল। কারণ আমি পাপ করেছি শাস্তি তো আমাকেই পেতেই হবে। এক অমানুষ মানুষ করার দায়িত্ব নিয়েছিলাম। কিন্তু ভুলেই গেছিলাম অমানুষ তো আর মানুষ হওয়ার নয়। এই অপরাধে আপনারা আমাকে যা শাস্তি দেবেন তা আমি মাথা পেতে নেব।

নোবেল আইডি হ্যাকের নামে প্রতারণা করেন দাবি করে হুমায়ূন তিনি আরও লেখেন, ‘আর হ্যাঁ আইডি হ্যাক করার নামে যে নতুন নাটক চলতেছে এগুলা কেউ বিশ্বাস কইরেন না প্লিজ। এগুলো ও নিজেই করে। আমি সত্যিই এই জাতির কাছে লজ্জিত। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিয়েন সবাই।’ এদিকে আহমেদ হুমায়ূনের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দিয়ে পাল্টা আরেকটি স্ট্যাটাস দিল নোবেল। সেখানে তিনি লেখেন, ‘হায়রে হুমায়ূন! তুমি জানি কে? কোনোদিন তো তোমার নামও শুনি নাই আগে! তিনবার রিজেক্ট করার পর হাতে পায়ে ধরে ‘অভিনয়’ গাওয়াইছো! তাও আবার ৯ লাখ টাকা খরচ করে। জীবনে ৬০০ গান করছো! পরে শুনে দেখলাম, অর্ধেকের বেশি গানের সুর নকল! হাহাহা!!’

‘কিং খান’ থেকে শুরু করে ডিরেক্টর ‘ইফতেখার চৌধুরী’ সবার সঙ্গেই কাজ করছো। ভালো কথা। তবুও একটা হিট গানের নাম জিজ্ঞাস করলে এক বাক্যে বলতে বাধ্য তুমি! বলো তো কি গান? ‘অভিনয়!!’ তাইনা ছোটো ভাই?’ ‘১৮ বছরের ক্যারিয়ারে করছো-টা কি তুমি?! সেই নোবেলকে তুমি বাপ তুলে গালি দাও?! কত বড় অকৃতজ্ঞ মানুষ তুমি!! তোমার কত মাসের বাড়ি ভাড়া দিছি আমি, ভুলে গেছো? ব্যাপার না। গরিবদের দান করতে আমি ভালোবাসি।’ ‘নিজে তো অভাবে পড়ে রাজশাহী ভাগছো ঘটিবাটি নিয়ে। বউও ভাগছে অন্য পোলার সঙ্গে। গাড়িটাও নিয়ে গেছে। তোমার পুরুষত্ব নিয়ে প্রশ্ন আছে আমার! ‘মেহেরবান’ গানের ৫০ শতাংশ সুর-সংগীত আমার করা লাগছে। তুমি নিজে স্বীকার করেছো হুমায়ূন! মামলা খাওয়ার জন্য রেডি থাকো! স্ক্রিনশট দিয়ে দিলাম! সবাই দেখো, কত নোংরা কথা বলছে আমাকে!’।।

Back to top button