দিনে ৩ বার রূপ বদল করে এই মন্দিরের হনুমানজি, জানুন পিছনের রহস্য

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাবা ভোলানাথের মতই আদি দেবতা হিসেবে পূজিত হয় ভগবান হনুমান। কলিযুগে হনুমানজি সবথেকে বেশি জাগ্রত এবং সংকটমোচনকারী ভগবান ছিলেন বলে মনে করা হয়। গোটা পৃথিবীতেই ছড়িয়ে রয়েছে হনুমানজির বিভিন্ন মন্দির। কিন্তু তার মধ্যে মধ্যপ্রদেশের এক মন্দিরে হনুমানজির এক আশ্চর্য্য মূর্তি দেখতে পাওয়া যায়, যা দিনে তিনবার হুনুমানজি নিজের রূপ পরিবর্তন করে। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই বাস্তব সত্য।

মধ্য প্রদেশের মন্ডলা নামক জেলা থেকে ৩ ক্রোশ দূরে পূর্ব গ্রামের নিকটবর্তী এক স্থানে প্রবাহিত সুরজকুন্ডে নর্মদা নদীর ধারে একটি মন্দিরে হনুমানজির এমনই একটি অদ্ভূত মূর্তি আছে। যা দিনে তিনবার রূপ পরিবর্তন করে। এই আশ্চর্য্যজনক হনুমান মূর্তি কে দেখতে বহু দূর থেকে হাজার হাজার ভক্তগণ এখানে আসেন। জীবনে একবার এই অদ্ভূত মূর্তি নিজে চোখে দেখে পূণ্য অর্জন করেত সেখানে হাজারো মানুষ প্রতি বছর ভিড় করেন।

মন্দিরের পুরোহিতের মতানুসারে, মন্দিরের এই মূর্তি সকাল ৪ টে থেকে ১০ টা পর্যন্ত শিশু রূপে থাকে। তারপর সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যে ৬ টা পর্যন্ত তা রূপ বদলে হয়ে যায় যুবক এবং সন্ধ্যে ৬ টা থেকে সারারাত সেই মূর্তি বৃদ্ধের রূপ ধারণ করে থাকে। পুরোহিত এবং স্থানীয়দের ধারণা যে, ভগবানের ইচ্ছার কারণেই এই মূর্তি দিনে তিনবার রূপ বদল করে থাকে।।

Back to top button